৫ শতাধিক মুক্তিযোদ্ধার শাহাদত বরনের ঘটনা আজও কাদাঁয়

৫ শতাধিক মুক্তিযোদ্ধার শাহাদত বরনের ঘটনা আজও কাদাঁয়
৫ শতাধিক মুক্তিযোদ্ধার শাহাদত বরনের ঘটনা আজও কাদাঁয়

বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের ইতিহাসে দিনাজপুরে এক বেদনাবিধুর মাইন বিস্ফোরন ট্র্যাজেডী দিবস আজ ৬ জানুয়ারী। ১৯৭২’র এই দিনে এক আকষ্মিক মাইন বিস্ফোরণে শহীদ হন মুক্তিযুদ্ধের বিজয় ছিনিয়ে আনা ৫ শতাধিক মুক্তিযোদ্ধা।

দিবসটি পালন উপলক্ষে ৬ জানুয়ারী স্মৃতি পরিষদসহ বিভিন্ন সংগঠন ব্যাপক কর্মসুচী নিয়েছে।

পাকহানাদার বাহিনীর আত্মসমর্পণের মধ্যে দিয়ে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর শত্রুমুক্ত হওয়ায় দিনাজপুর শহরের উত্তর বালুবাড়ীর মহারাজা গিরিজানাথ হাই স্কুল মুক্তিযোদ্ধাদের একটি ট্রানজিট ক্যাম্প বসানো হয়। ৬ ও ৭ নং সেক্টরের প্রায় এক হাজার মুক্তিযোদ্ধা এখানে অবস্থান গ্রহণ করেন।

ভারতের হরিরাম, হামজাপুর, তরফপুর এবং বাংলাদেশের নবাবগঞ্জ, ফুলবাড়ী, পার্বতীপুর, হাকিমপুর, বিরামপুর, দিনাজপুর সদর, চিরিরবন্দর, ঠাকুরগাঁও হরিপুর, পীরগঞ্জ, বালিয়াডাঙ্গা ও রাণীশঙ্কৈল এলাকার যোদ্ধারা ১৬ থেকে ২০ ডিসেম্বরের মধ্যে মহারাজা স্কুলের ট্রানজিট ক্যাম্পে অবস্থান নেন।

সদ্য স্বাধীনতাপ্রাপ্ত বাংলাদেশের মাটি দিনাজপুরের বিভিন্ন এলাকায় হানাদার বাহিনীর পুতে রাখা মাইন এবং ফেলে যাওয়া ও লুকিয়ে রাখা অস্ত্রশস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধারের কাজে ব্যস্ত ছিলেন মুক্তিযোদ্ধারা। প্রতিদিন জেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে তল্ল¬াশি চালিয়ে মুক্তিযোদ্ধা

রা ট্রাকে করে পরিত্যক্ত অস্ত্রশস্ত্র মহারাজা স্কুলের ট্রানজিট ক্যাম্পের রক্ষণাগারে জমা করতেন।
৬ জানুয়ারী ১৯৭২ সাল। ঘোড়াঘাট থানার বিভিন্ন এলাকা থেকে উদ্ধারকৃত পরিত্যক্ত অস্ত্রশস্ত্র ও গোলাবারুদ বোঝাই দুটি ট্র্রাক আসে বিকেল ৪ টায়। শুরু হয় ট্রাক থেকে অস্ত্রশস্ত্র ও গোলাবারুদ খালাসের কাজ। সোয়া ৫টায় সময় প্রথম ট্রাকের অস্ত্র নামানোর কাজ শেষ হয়। তারপর শুরু হয় দ্বিতীয় ট্রাকটির অস্ত্র নামানোর কাজ।

ট্রাক থেকে বাংকারে অস্ত্র নামানোর সময় একজনের হাত থেকে অসাবধানতা বশত কয়েকটি পারসোনাল মাইন মাটিতে পড়ে গেলে মারাত্নক ও হৃদয়বিদারক দূর্ঘটনার সৃষ্টি হয়। মুহুর্তের মধ্যে বাঙ্কারে মজুদকৃত বিকট শব্দে বিস্ফোরিত হয়। প্রায় ১৫ থেকে ২৫ ফুট গভীর বিরাট বাঙ্কারটির আশপাশ ফাকা জায়গাটি পুকুরে পরিনত হয়।

দূর্ঘটনা সময় অদুরে টিনের ছাপড়ার মসজিদে মাগরিবের সামাজ আদায়কারী সকল মুসলিল্ল ও দূর্ঘটনা থেকে ১৫০ গজ অদুরে মহারাজা স্কুলের ১৩ টি কক্ষ অবস্থানরত অধিকাংশ মুক্তিযোদ্ধা এ মর্মান্তিক দূর্ঘটনায় নিহত হয়। তৎকালীন মহারাজার আমলে নির্মিত শক্তিশালী এই স্কুলের ভবন মাইন বিস্ফোরণের ফলে দুমড়ে-মুচড়ে কাগজের মতো হয়ে যায়। ভয়াবহ এ মাইন বিস্ফোরনে কতজনের নিমর্ম মৃত্যু হয়েছে তার সঠিক সংখ্যা আজও নির্ণয় করা সম্ভব হয়নি।

শুধু মুক্তিযোদ্ধাই নয়, এই ভয়াবহ দুর্ঘটনায় উত্তর বালুবাড়ী কুমার পাড়া এলাকার আরো ১৫জন অমুক্তিযোদ্ধাও মৃত্যুবরণ করেন। ধ্বংসযজ্ঞে পরিণত হয় মহারাজা স্কুলের দ্বিতল ভবনসহ আশেপাশের অধিকাংশ ঘর-বাড়ী, দালান-কোঠা।

দূর্ঘটনার পরদিন ৭ জানুয়ারী দিনাজপুর গোরা শহীদ ময়দানে শহীদদের নামাজে জানাযা অনুষ্ঠিত হয়। পরে সামরিক মর্যাদায় ১২৫জন শহীদের লাশ দাফন করা হয় পূন্যভূমি ঐতিহাসিক চেহেলগাজী মাজার প্রাঙ্গণে।

এরপরে চেহেলগাজী মাজার প্রাঙ্গণে আরও দাফন করা হয় হাসপাতালের মৃত্যুবরণ করা ২৯ জনের লাশ। নিহতদের মধ্যে সে সময়ে ৫৮ জনের নাম পরিচয় পাওয়া যায়। পরবর্তীতে পর্যায়ক্রমে পাওয়া যায় আরো ৬৪ জন শহীদের নাম ও পরিচয়।

বীরমুক্তিযোদ্ধা সফিকুল ইসলাম জানান, ৬ জানুয়ারী সন্ধ্যায় এই রুটিন ওয়ার্কের এক পর্যায়ে ঘটে যায় মাইন বিস্ফোরন দূর্ঘটর্না শহীদ হন ৫শতাধিক মুক্তিযোদ্ধা।

দিবসটি পালনের লক্ষ্যে ৬ জানুয়ারী স্মৃতি পরিষদ, দিনাজপুর’ ব্যাপক কর্মসুচী গ্রহণ করেছে। কর্মসূচীর মধ্যে রয়েছে, কালো পতাকা উত্তোলন ও কালো ব্যাচ ধারন, চেহেলগাজী মাজারে শহীদদের গণকবর ও মহারাজা স্কুল প্রাঙ্গনে শহীদদের নামফলকে শ্রদ্ধাঞ্জলী অর্পন, দিনাজপুর প্রেসক্লাবে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে এবং মহারাজা স্কুল মসজিদে মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হবে।

আপনার মতামত লিখুনঃ