স্বেচ্ছেসেবক লীগ নেতার হামলায় প্রকৌশলী হাসপাতালে

স্বেচ্ছেসেবক লীগ নেতার হামলায় প্রকৌশলী হাসপাতালে
স্বেচ্ছেসেবক লীগ নেতার হামলায় প্রকৌশলী হাসপাতালে
আদিতমারী(লালমনিরহাট) প্রতিনিধিঃ
লালমনিরহাট জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ সভাপতি একেএম হুমায়ুন কবিরের হামলায়  প্রকৌশলী জাকিরুল ইসলাম(৪৮) আদিতমারী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।
বৃহস্পতিবার(১৮ এপ্রিল) দুপুরে আদিতমারী হাসপাতালে তাকে ভর্তি করা হয়েছে। একই ঘটনায় তার এক সহকর্মী আশরাফুল ইসলামকে(৫০) প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।
এর আগে বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে আদিতমারী উপজেলার সারপুকুর ইউনিয়নের সরলখাঁ উচ্চ বিদ্যালয় এলাকায় কাজ পরিদর্শনে গেলে এ হামলার শিকার হন তিনি।
আহত প্রকৌশলী জাকিরুল ইসলাম লালমনিরহাট সদর উপজেলার রাজপুর ইউনিয়নের চাংরা গ্রামের শাহজাহান আলীর ছেলে। তিনি আদিতমারী উপজেলা উপ সহকারী প্রকৌশলী পদে কর্মরত।
আহত প্রকৌশলী জাকিরুল ইসলাম ও তার সহকর্মীরা জানান, উপজেলার সরলখাঁ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে তেতুল তলা হয়ে টেপারহাট পর্যন্ত বাইপাস সড়কের সংস্কার কাজ চলছি। মঙ্গলবার( ১৮ এপ্রিল) সকালে সেই সংস্কার কাজ শুরু হলে পরিদর্শনে যান উপ সহকারী প্রকৌশলী জাকিরুল ইসলাম। এ সময় কাজের মান নিম্নমানের উল্লেখ করে কাজ বন্ধ করার হুমকী দিয়ে প্রকৌশলী জাকিরুল ইসলামকে অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করেন জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ সভাপতি একেএম হুমায়ুন কবির ও তার লোকজন।
এক পর্যয়ে হুমায়ুন কবির ও তার লোকজন লাঠি সোটা নিয়ে প্রকৌশলীর উপর হামলা চালান। প্রকৌশলী জাকিরুলকে উদ্ধার করতে গিয়ে তার সহকর্মী আশরাফুল ইসলামও আহত হন। খবর পেয়ে থানা পুলিশ গিয়ে আহতদের উদ্ধার করে আদিতমারী হাসপাতালে ভর্তি করেন। চিকিৎসকরা প্রকৌশলীকে হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দিলেও তার সহকর্মী আশরাফুলকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়েছেন।
তবে অভিযুক্ত জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগে সহ সভাপতি একেএম হুমায়ুন কবির জানান, সড়ক সংস্কার কাজে ইটের পাশে দুই ফিট মাটি দেয়া কথা থাকলেও তা করা হয়নি। যার ফলে সড়কটি ভেঙ্গে যেতে পারে। তাই মাটি দিতে ঠিকাদারকে বলা হলে প্রকৌশলী নিজে বিষয়টি টেনে নিয়ে এলাকাবাসীর সাথে বিতর্কে জড়ায়। হামলার কোন ঘটনা ঘটেনি বলেও দাবি করেন তিনি।
স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতরের নির্বাহী প্রকৌশলী একেএম আমিরুজ্জামান হাসপাতালে আহত প্রকৌশলীকে দেখতে এসে সাংবাদিকদের বলেন,ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা হয়েছে। তাদের সিদ্ধান্ত মোতাবেক এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।
আদিতমারী থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মাসুদ রানা জানান, বিষয়টি শুনেছেন। প্রকৌশলীকে লিখিত অভিযোগ দিতে বলা হয়েছে। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।
এ দিকে জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি সাইফুল ইসলাম জানান, এমন ঘটনা তার জানা নেই। তবে এমন ঘটনায় সম্পৃক্ত থাকলে বা মামলা হলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ভাবে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানান তিনি।