চতুর্থ শ্রেণীর শিক্ষার্থীকে বিয়ে করলেন ২৫ বছরের যুবক

সুন্দরগঞ্জে চতুর্থ শ্রেণীর শিক্ষার্থীকে বিয়ে করলেন ২৫ বছরের যুবক

সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) সংবাদদাতাঃ গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে চতুর্থ শ্রেণীর শিক্ষার্থী জেসমিন আক্তার জেমিকে বিয়ে করেছেন ২৫ বছরের যুবক খায়রুজ্জামান মিয়া। গত ১৩ সেপ্টেম্বর (শুক্রবার) গভীর রাতে মেয়ের বাড়িতে আনুষ্ঠানিক ভাবে এ বাল্য বিয়ের কার্যক্রম সম্পন্ন করেন উভয় পরিবারের লোকজন।

এসময় সোনারায় ইউনিয়ন কাজী শাহ আলমের সহকারি আঃ মতিন মিয়া বাবলু কাজী উপস্থিত থেকে বিবাহ সম্পন্ন করেন। কনে জেসমিন আক্তার জেমি উপজেলার সোনারায় ইউনিয়নের ফতেখাঁ গ্রামের জিয়ারুল ইসলামের মেয়ে ও শিবরাম আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রী এবং বর খায়রুজ্জামান মিয়া একই ইউনিয়নের বলরাম গ্রামের মৃত খুজিয়া শেখের ছেলে।

কাজী শাহ আলম উপজেলার খামার মনিরাম বালিকা বিদ্যা নিকেতনের সহকারি শিক্ষক ও সোনারায় ইউনিয়নের বলরাম গ্রামের মৃত গরীব উল্লাহ ব্যাপারীর ছেলে এবং আঃ মতিন বাবলু কাজী একই ইউনিয়নের পূর্ববৈদ্যনাথ গ্রামের মৃত আঃ খালেক মিয়া মুন্সির ছেলে। এ সময় সোনারায় ইউনিয়নের বলরাম গ্রামের মৃত আব্দুর রহমানের ছেলে মন্টু মিয়া (৪২), মৃত মফিজ উদ্দিনের ছেলে জাহিদুল ইসলাম, মৃত মোবারক শেখের ছেলে আজগার আলী (৬০) ও বরের দুলাভাই ফুল মিয়াসহ (৫৭) অনেকে উপস্থিত ছিলেন বিবাহ সম্পন্নকালে।

কাজী শাহ আলমের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে নিউজ করতে নিষেধ করে বলেন আমি দেখা করতেছি আপনার সাথে। শাহ আলম কাজীর সহযোগি আঃ মতিন বাবলু কাজী বাল্যবিয়ের বিষয়টি অস্বীকার করেন। জেসমিন আক্তার জেমি চতুর্থ শ্রেণীতে অধ্যয়নরত বিষয়টি নিশ্চিত করে শিবরাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রুহুল আমীন বলেন, বাচ্চাটি সর্বশেষ গত ১১ সেপ্টেম্বর ক্লাশে উপস্থিত ছিলো। এরপর খোঁজ নিয়ে দেখি পারিবারিক ভাবে তার বিয়ে হয়েছে।

সোনারায় ইউপি চেয়ারম্যান সৈয়দ বদিরুল আহসান সেলিম বলেন, এধরণের সংবাদ আমার জানা নেই। উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মোঃ সোলেমান আলী বলেন, কোথায় বিয়ে হয়েছে আমার জানা নেই। যদি কোথাও বিয়ে হয়ে থাকে, আর যদি সেটা বাল্যবিয়ে প্রমাণিত হয় তাহলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

আপনার মতামত লিখুনঃ