সাড়ে আট হাজার আবেদন লটারিতে ২০৭৯ কৃষকের নাম

সাড়ে আট হাজার আবেদন লটারিতে ২০৭৯ কৃষকের নাম

রবিউল ইসলাম দুখু:
রংপুর সদরে ডিজিটাল পদ্ধতিতে (অ্যাপের মাধ্যমে) সরকারিভাবে চলতি আমন মৌসুমে ধান সংগ্রহের জন্য গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে লটারী অনুষ্ঠিত হয়েছে। ৮ হাজার ৭৮৭ জন কৃষক অ্যাপের মাধ্যমে আবেদন করেন। লটারীর মাধ্যমে নেয়া হয় ২ হাজার ৭৯ জন কৃষককের। লটারীতে তিন ভাগে কৃষক নির্বাচিত করা হয়।

ছোট কৃষক ১৩৫০ জন, মাঝারি কৃষক ৫০৫ জন এবং বড় কৃষক ২৪০ জন। তাদের ম্যাসেসও দেয়া হয়েছে। সদরের খাদ্য নিয়ন্ত্রক কার্যালয় জানায়, রংপুর সদরে কৃষক আছেন প্রায় ১৬ হাজার। আর সিটি এলাকায় কৃষকের সংখ্যা ৩১ হাজার। ৪৬ হাজার কৃষকের মধ্যে নিবন্ধনের জন্য আবেদন করেন ১২ হাজার ৯৮৭ জন।

গৃহীত হয় ১২ হাজার ৬৫ জনের । ধান বিক্রির জন্য আবেদন করেন ৮ হাজার ৮৮৭ জন কৃষক। এই সংখ্যা থেকেই লটারী হয়। জাতীয় পরিচয়পত্র ও মোবাইল নম্বর দিয়ে নিবন্ধন সম্পন্ন করে ধান বিক্রির আবেদন করেন।

নিবন্ধনের দিন থেকেই কৃষক ধান বিক্রির আবেদন শুরু করে। লটারীর সময় উপস্থিত ছিলেন- সদরের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইসরাত সাদিয়া সুমি, সদরের খাদ্য নিয়ন্ত্রক অমূল্য কুমার সরকার, জেলার ধান ক্রয় কমিটির সদস্য জাহাঙ্গীর বকসি। রংপুর সদর উপজেলার হরিদেবপুর ইউনিয়নের লটারীতে ওঠা কয়েকজন কৃষক জানান, ম্যাসেস পেয়েছেন, ধান দেয়ার অপেক্ষায় আছেন।

রংপুরের আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রক রায়হানুল ইসলাম জানান, লটারী হয়েছে, এখন ধান ক্রয় করা হবে। গত ২০ নভেম্বর বুধবার থেকে দেশের সরকারি খাদ্য গুদামগুলোতে এই কার্যক্রম শুরু হয়েছে। চলবে আগামী বছরের ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। চলতি মওসুমে ধান সংগ্রহে ডিজিটাল পদ্ধতি ‘কৃষকের অ্যাপ’ পদ্ধতি নতুন মাত্রার যোগ করেছে খাদ্য অধিদপ্তর।

প্রথমবারের মতো পাইলট প্রকল্প হিসেবে দেশের ১৬টি উপজেলায় এবারে ধান ক্রয় করা হয় ডিজিটাল পদ্ধতিতে। চাষীরা স্মার্টফোন ব্যবহার করে মাঠ থেকেই ‘কৃষকের অ্যাপ’-এর মাধ্যমে তাঁদের ধান বিক্রি করবেন। নিবন্ধন, বিক্রয়ের আবেদন, বরাদ্দের আদেশ ও মূল্য পরিশোধের সনদ-সব তথ্যই আদান প্রদান করা হবে এসএমএসের মাধ্যমে।

রংপুর বিভাগে ‘কৃষকের অ্যাপ’-এর মাধ্যমে রংপুর সদর উপজেলা এবং দিনাজপুর সদর উপজেলায় সরকারি খাদ্য গুদামগুলোতে এই ধান সংগ্রহ করা হচ্ছে। রংপুর বিভাগের মোট ৮৯টি সরকারি খাদ্য গুদামে চাষীরা সরাসরি প্রতি কেজি ২৬ টাকা দরে ধান বিক্রি করবেন।

প্রত্যেক কৃষকের কাছ থেকে কমপক্ষে ৪’শ কেজি ধান ক্রয় করা হবে। চলতি মওসুমে রংপুর বিভাগের ৮ জেলা থেকে এবারে সরকারী ভাবে ১ লাখ ৮’শ ৮৩ মেট্রিক টন চাল ক্রয় করা হবে ।

আপনার মতামত লিখুনঃ