শিশুকে আটকে রেখে অন্ত:স্বত্বা স্ত্রীকে নির্যাতন

শিশুকে আটকে রেখে অন্ত:স্বত্বা স্ত্রীকে নির্যাতন
শিশুকে আটকে রেখে অন্ত:স্বত্বা স্ত্রীকে নির্যাতন

মাহাফুজুল ইসলাম আসাদ,চিরিরবন্দর দিনাজপুর প্রতিনিধি:
যৌতুকের লোভে চিরিরবন্দর উপজেলায় অন্ত:সত্ত্বা স্ত্রী মাহামুদা বেগমকে পাশবিক নির্যাতন করে বাড়ী থেকে বের করে দিয়েছে পাষন্ড স্বামী ফারুক হোসেন । আহত মাহামুদা এখন চিরিরবন্দর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

শনিবার ( ১৫ ফেব্রুয়ারি) ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার দক্ষিন আলোকডিহি গ্রামে । অভিযুক্ত ফারুক মৃত শওকত আলীর ছেলে ।

নির্যাতনের শিকার মাহামুদা জানান, আমার স্বামী ফারুক হোসেন এর সঙ্গে ২০১৬ সালের আগষ্ট মাসে তিন লক্ষ টাকা যৌতুক দিয়ে পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয়।

বিয়ের পরপরই আমার স্বামী , শাশুড়ী বাবার বাড়ী থেকে বার বার টাকা নিয়ে আসতে বলে আমি টাকা আনতে অস্বীকার করলে আমার উপর নেমে আসে পাশবিক নির্যাতন।

গত ১৫ ফেব্রুয়ারী রাত ৮টার দিকে আমাকে বাবার বাড়ী থেকে টাকা আনতে চাপ দিলে আমি রাজি না হলে আমাকে বেধড়ক মারধর করে এবং ৯ মাসের দুধের শিশুকে আটকে রেখে রাতেই আমাকে বাড়ী হইতে বের করে দেয় ।

আমি দুই মাসের অন্ত:স্বত্ত্বা। বাবার বাড়ী থেকে যৌতুকের টাকা না দেয়ায় গত ৪দিন আমার খাবার বন্ধ করে দিয়েছিল তারা।

তিনি আরও জানান, ইতিপূর্বে মাদকাসক্ত স্বামী ফারুক হোসেন তাকে যৌতুকের জন্য আরো কয়েকবার চরম মারধর করেছে।
এর আগে থানায় জিডি করে এলাকা বাসী ও চেয়ারম্যানের কাছে নালিশ করা হয়েছিল। ।

পরবর্তীতে এলাকাবাসী ও চেয়ারম্যানের মাধ্যমে শালিস করে ফারুক কে মৌখিকভাবে সতর্ক করে মাহামুদাকে স্বামীর সংসারে ফেরত পাঠানো হয়। কিন্তু কিছুদিন যাওয়ার পর ফারুক আবারও তাকে পাশবিক নির্যাতন করতে থাকে।

এ বিষয়ে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান লায়লা বানু বলেন, ফারুককে কয়েকবার বলার পরও সে কর্ণপাত করেনি।
চিরিবন্দর থানার ওসি সুব্রত কুমার সরকার বলেন, লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আপনার মতামত লিখুনঃ