রাণীশংকৈলে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে নির্মাণ হবে আধুনিক জংশন

রাণীশংকৈলে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে নির্মাণ হবে আধুনিক জংশন

মোঃ সবুজ ইসলাম, রাণীশংকৈল প্রতিনিধিঃ
আধুনিক পৌরসভা গড়ার লক্ষ্যে ঠাকুরগাওঁয়ের রাণীশংকৈলে পৌরসভার আওতাধীন উপজেলার জিরো পয়েন্ট শিবদিঘী যাত্রীছাউনি মোড় এলাকার আশেপাশে দীর্ঘদিন ধরে অবৈধভাবে স্থাপনা তৈরি করে ব্যবসা বাণিজ্য করে আসা ব্যবসায়ীদের দোকান ভেঙ্গে দিয়ে উচ্ছেদ করছে পৌরসভা।

এসব অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান শেষে নির্মাণ হবে আধুনিক জংশন(চৌরাস্তা)। আর এতে নেতৃত্ব দিচ্ছেন যুবলীগ সভাপতি পৌরমেয়র আলমগীর সরকার ।

গত ৬ সেপ্টেস্বর থেকে শুরু হওয়া অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ ও উচ্ছেদ অভিযানে জেলা পরিষদের আওতাধীন যাত্রী ছাউনি, মোটরসাইকেল মেকানিস দোকান, চায়ের দোকান, তুলার দোকান এছাড়াও ব্যক্তিমালিকানায় থাকা দোকানের সামনে সরকারী সম্পত্তি উদ্বার করছে রাণীশংকৈল পৌরসভা।

আধুনিক জংশন নির্মাণের লক্ষ্যে জাপান বাংলাদেশ কো-অপারেশন এজেন্সি(জাইকা) নবিদেপ প্রকল্পের অর্থায়ানে পৌরসভার আওতায় প্রায় ২ কোটি ১৯ লাখ টাকায় মাহিবুল এন্টারপ্রাইজ নামক ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের সাথে চুক্তি করেছে জাইকা ও পৌরসভা।

যানজটমুক্ত এবং সহজেই যাতায়াতের জন্যই পৌরসভাধীন শিবদিঘী যাত্রীছাউনি মোড় এলাকায় বড় আকারের একটি জংশন নির্মাণ করা হবে। যেখানে যে কোন বড় ধরনের যানবাহন যেন খুব সহজেই চলাচল করতে পারে এমনটিই জানান জাইকার নগর প্রকৌশলী রাশেদুল ইসলাম ।

তিনি আরোও জানান, জংশনের দুপাশে সাধারণ মানুষের চলাচলের জন্য ফুটপাত, এইচবিবি রাস্তা ,আধুনিক যাত্রীছাউনি, পাবলিক টয়লেট, ২টি বাসষ্ট্যান্ড, মাইক্রোস্ট্যান্ড জনস্বার্থে টিউবওয়েল স্থাপন, রিক্সা ভ্যান ষ্ট্যান্ড এছাড়াও প্রায় ২৫০টি সড়ক বাতি স্থাপন করা হবে ।

পৌরসভার মেয়র আলমগীর সরকার বলেন, অবৈধভাবে থাকা যে কোন প্রভাবশালীর স্থাপনা পৌরসভার উন্নয়নের স্বার্থে উচ্ছেদ করা হবে। এবং জংশন নির্মাণের জন্য যা যা করা প্রয়োজন রাণীশংকৈল পৌরবাসীকে নিয়ে আমি তাই করবো। এছাড়াও পৌরবাসীর উন্নয়নের কথা চিন্তা করে সকলকে সহযোগিতা করার আহবান জানাচ্ছি।

আপনার মতামত লিখুনঃ