রংপুরে বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত অনেকে ঘর-বাড়ি অন্যত্র সরিয়ে নিচ্ছে

রংপুরে বন্যা পরিস্থিতি
রংপুরে বন্যা পরিস্থিতি

স্টাফ রিপোর্টারঃ রংপুরে বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়েছে। খাবার সংকটসহ প্রয়োজনীয় সহায়তা পাওয়া যাচ্ছে না বলে অভিযোগ উঠেছে।  ভাঙ্গন প্রকট হওয়ায় দুর্ভোগ বেড়েছে  পানি বন্দি মানুষের। বিভিন্ন এলাকায় নদী ভাঙন দেখা দেওয়ায় লোকজন তাদের ঘরবাড়ি অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে যাচ্ছে।রোববার তিস্তা ব্যারাজের ডালিয়া পয়েন্টে নদীর পানি বিপদসীমার (৫২ দশমিক ৬০ মিটার) ২৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়।

তিস্তার  আকষ্মিক বন্যায় রংপুরের গঙ্গাচড়া, কাউনিয়া ও পীরগাছা উপজেলার নদী কূলবর্তী ৫০ গ্রাম তলিয়ে যাওয়ায় পানিবন্দি হয়ে পড়েছে প্রায় ২০ হাজার পরিবার। এর মধ্যে গঙ্গাচড়ায় ১০ হাজার পরিবার, কাউনিয়ায় ছয় হাজার পরিবার ও পীরগাছায় চার হাজার পরিবার। ঘরবাড়ি তলিয়ে যাওয়ায় অনেকে তিস্তার বাঁধে গবাদীপশুসহ আশ্রয় নিয়েছে। অনেকের ঘরে হাটু কিংবা কোমর পানি ওঠায় চুলা জ্বালাতে পারছেনা । বন্যাকবলিত এলাকায় খাদ্য ও বিশুদ্ধ পানির সংকট দেখা দিয়েছে। কোলকোন্দ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সোহরাব আলী রাজু জানান, শুধু তার ইউনিয়নেই প্রায় দুই হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। জরুরি ভিত্তিতে বন্যদুর্গত এলাকায় ত্রাণসামগ্রী প্রয়োজন বলে জানান তিনি। ল²ীটারী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল¬াহ্ আল হাদী জানান, বন্যার সঙ্গে নদী ভাঙনে সর্বশান্ত হচ্ছে চরের মানুষজন। বর্তমানে এলাকায় খাদ্য সংকট দেখা দিয়েছে।

তবে ক’দিন আগে গঙ্গাচড়ার ল²ীটারী, কোলকোন্দ ও নোহালী ইউনিয়নে কভিড-১৯ সহ অসহায় মানুষদের জন্য ২৩ মেট্রিকটন করে চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার তাছলিমা বেগম জানান, গত দু’দিনে ল²ীটারী ও কোলকোন্দ ইউনিয়নের ৭০০ পরিবারের মাঝে পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট, স্যালাইন, মোমবাতিসহ শুকনো খাবার বিতরণ করা হয়েছে।

আপনার মতামত লিখুনঃ