রংপুরে পেঁয়াজের কেজি ২০০ টাকা

দেশে সকল প্রকার রেনিটিডিন জাতীয় ওষুধ উৎপাদন, বিক্রি, বিতরণ ও রফতানি স্থগিত ঘোষণা করেছে ওষুধ প্রশাসন অধিদফতর

স্টাফ রিপোর্টার:
কিছুতেই নিয়ন্ত্রণে আসছে পিয়াজের দাম। দিন দিন বাড়ছে। প্রথম ১০০, পরে ১৫০ গতকাল বৃহস্পতিবার বিক্রি হয়েছে ২০০ টাকায়। গতকাল বৃহস্পতিবার রংপুর নগরীর সিটি বাজার ঘুরে জানা যায়, ব্যবসায়ীরা প্রতি কেজি পেঁয়াজ ১৯০ থেকে ২০০ টাকায় বিক্রি করছেন। বিক্রেতারা জানান, পাইকারি বাজারে দেশি পেঁয়াজের সরবরাহ তুলনামূলক কম।

এ কারণে সেখানে বাড়তি দামে পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে। যার প্রভাব পড়েছে খুচরা বাজারে। সবজি দোকানদার রফিক জানান, দাম বাড়ার কারণে পেয়াজ বিক্রিও কমে গেছে। আগে দিনে ২০ কেজির মতো বিক্রি হলেও এখন ৭ কেজি পিয়াজও বিক্রি হয় না। তারা আরো জানান, পেঁয়াজের মজুদ কম থাকায় দাম বাড়ছে। বাইরে থেকে আসা পেঁয়াজের এর স্বাদ তেমন ভালো না।

তাই ক্রেতারা পছন্দ করে না। ফলে আগের চেয়ে এখন পেঁয়াজের বিক্রিও কম। বাজারে প্রতি কেজি পাতা পেয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকা থেকে ১১০ টাকা কেজি দরে। ক্রেতারা জানিয়েছেন, বাজারে দেশি ও আমদানি করা কোনো পেঁয়াজেরই ঘাটতি নেই। এছাড়াও বাজারে নেমেছে পাতা পেঁয়াজ। তাই পেঁয়াজের দাম বাড়ার কোনো কারণ নেই।

তবুও খুচরা বাজারে পেঁয়াজের দর বেড়েই চলেছে। বাজারে প্রতি কেজি কাচা মরিচ বিক্রি হচ্ছে ৩০-৪০ টাকায়। তবে শুকনা মরিচের দাম হু- হু করে বাড়ছে। প্রতি কেজি শুকনা মরিচ বিক্রি হচ্ছে ২৩০ টাকায়। ২ সপ্তাহ আগে এ মরিচ বিক্রি হয়েছে ১৮০ টাকায়। রসুন ১৬০ টাকা এবং আদা বিক্রি হচ্ছে ১৮০-২০০ টাকা কেজি দরে। গত সপ্তাহেও ছিল সবজির বাজার চড়া।

এ সপ্তাহেও চড়া রয়েছে সবজির বাজার। ব্যবসায়ীরা জানান, বাজারে প্রতি কেজি মোটা চাল ২২- ২৮ টাকা, বিআর ২৮ এবং বিআর ২৯ চাল ৩৫ টাকা এবং মিনিকেট চাল বিক্রি হচ্ছে ৪৫ টাকা কেজি দরে। বাজারে হাতের নাগালের মধ্যে রয়েছে ব্রয়লার , পাকিস্তানি এবং দেশী মুরগীর দাম।

তারা প্রতি কেজি ব্রয়লার মুরগী ১১০ টাকা, পাকিস্তানি মুরগি ২০০ টাকা এবং দেশী মুরগী বিক্রি করছেন ৩২০ টাকায়। কমেনি গরু ও খাসির মাংসের দাম। বাজারে প্রতি কেজি গরুর মাংস ৫০০ টাকা এবং খাসির মাংস বিক্রি হচ্ছে ৭০০-৭৩০ টাকা কেজি দরে। পূর্বের দামেই বিক্রি হচ্ছে সকল প্রকার মাছ। বাজারে সয়াবিন তেল লিটারে বেড়েছে ৩-৫ টাকা।

সয়াবিন তেল প্রতি লিটার (বোতল) ১০৫ টাকা এবং খোলা তেল বিক্রি হচ্ছে ৯০ টাকায়। চিকন মসুর ডাল বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকা এবং মোটা ডাল ৫০-৫২ টাকা কেজিতে। ডিমের দাম নেয়া হচ্ছে ৩২ টাকা এবং চিনি বিক্রি করা হচ্ছে ৫৮ টাকা কেজিতে।

আপনার মতামত লিখুনঃ