যৌতুকের টাকার জন্য গৃহবধূকে ফাঁসি দিয়ে হত্যা

যৌতুকের টাকার জন্য গৃহবধূকে ফাঁসি দিয়ে হত্যা
যৌতুকের টাকার জন্য গৃহবধূকে ফাঁসি দিয়ে হত্যা

নারায়ণগঞ্জ শহরের টানবাজার সাহাপাড়ায় বৃষ্টি চৌধুরী (২১) নামে এক গৃহবধূকে যৌতুকের দাবিতে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে বৃষ্টির স্বামী ও শ্বশুরকে আটক করেছে পুলিশ। শুক্রবার বিকেলে ১০০ শয্যাবিশিষ্ট নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে বৃষ্টির মৃত্যু হয়। নিহতের পরিবারের দাবি, যৌতুক না দেয়ায় শ্বশুর বাড়ির লোকজন বৃষ্টিকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে। অভিযুক্তদের দাবি, পারিবারিক দ্বন্দ্বের জের ধরে বৃষ্টি আত্মহত্যা করেছে।

বৃষ্টি চৌধুরীর ভাই মিঠুন চৌধুরী জানান, দুই বছর আগে কুমিল্লার মুরাদনগর এলাকার শ্যামল চৌধুরীর মেয়ে বৃষ্টির সঙ্গে শহরের টানবাজার সাহাপাড়া এলাকার সুভাষ চন্দ্র রায়ের ছেলে ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের কর্মকর্তা সুদীপ রায়ের সঙ্গে বিয়ে হয়। বিয়ের সময়েই ১৫ লাখ টাকা ও ২০ ভরি স্বর্ণালংকার দেয় বৃষ্টির পরিবার। কিন্তু বিয়ের পরে আরও যৌতুকের জন্য বৃষ্টিকে মারধর করতো শ্বশুর বাড়ির লোকজন। এসব নিয়ে আগেও কয়েকবার বিচার সালিশ হয়েছিল। শুক্রবার স্বামী, শ্বশুর, শাশুড়ি ও ননদ মিলে নির্যাতন করে বৃষ্টিকে হত্যা করে। তবে বৃষ্টির স্বামী সুদীপ রায় জানান, পারিবারিক ঝগড়ার জের ধরে শুক্রবার দুপুরে ঘরের দরজা বন্ধ করে রাখে বৃষ্টি। বিকেলে ডাকাডাকির পরেও দরজা না খোলায় তালা ভেঙে ভেতরে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় বৃষ্টিকে পাওয়া যায়। পরে তাকে দ্রুত হাসপাতালে নেয়া হয়।

নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের ডা. নুরুজ্জামান জানান, শরীরে আঘাতের চিহ্নসহ গলায় দাগ পাওয়া গেছে। ময়নাতদন্তের পর মৃত্যুর বিস্তারিত বলা যাবে। নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি কামরুল ইসলাম জানান, নিহতের পরিবারের অভিযোগের প্রেক্ষিতে বাবা ও ছেলেকে আটক করা হয়েছে।