মোসাদ্দেকের সেঞ্চুরির পরও আবাহনীর হার

মোসাদ্দেকের সেঞ্চুরির পরও আবাহনীর হার
মোসাদ্দেকের সেঞ্চুরির পরও আবাহনীর হার

এফএনএস স্পোর্টস: সেঞ্চুরি করলেন মোসাদ্দেক হোসেন, এরপরও আবাহনীর টানা দ্বিতীয় হার ঠেকাতে পারেননি এই অধিনায়ক। গতকাল বুধবার ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে (ডিপিএল) শেখ জামালের বিপক্ষে ৩ উইকেটে হেরেছে আবাহনী। আগের ম্যাচে লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের বিপক্ষে হারতে হয়েছিল আবাহনীকে। সেই ধাক্কা কাটিয়ে ওঠার মিশনে নেমেছিল তারা শেখ জামালের বিপক্ষে। তবে সেখানেও একই পরিণতি, হেরে গেছে ৩ উইকেটে। টানা দ্বিতীয় হারে পয়েন্ট টেবিলে আরও পিছিয়ে গেছে ঢাকার ঐতিহ্যবাহী ক্লাবটি।

শীর্ষে থাকা রূপগঞ্জের (২০) সঙ্গে আবাহনীর (১৬) ব্যবধান এখন ৪ পয়েন্টের। বিকেএসপিতে সতীর্থদের ব্যর্থতার মাঝে একা হাতে লড়ে গেছেন মোসাদ্দেক হোসেন। মিডল অর্ডারে তার খেলা অপরাজিত ১০১ রানের ভর দিয়েই আবাহনী নির্ধারত ৫০ ওভারে ৯ উইকেটে করে ২১১ রান। সহজ এই লক্ষ্য ৭ বল আগে ৭ উইকেট হারিয়ে টপকে যায় শেখ জামাল। জহুরুল ইসলাম (৯), সৌম্য সরকার (১), নাজমুল হোসেন শান্ত (০), সাইফউদ্দিন (৮) সবাই ব্যর্থ। মোহাম্মদ মিঠুন চেষ্টা করেও বেশিদূর যেতে পারেননি, থামেন ৩৩ রানে। এরপরও আবাহনীর রান ২০০ পেরোয় মোসাদ্দেকের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে। লিস্ট ‘এ’ ক্যারিয়ারের তৃতীয় সেঞ্চুরি পূরণ করে এই ব্যাটসম্যান ১৩৯ বলে ৬ বাউন্ডারি ও ৩ ছক্কায় খেলেন অপরাজিত ১০১ রানের কার্যকরী ইনিংস।

আবাহনীকে অল্পতে আটকে রাখার পথে সবচেয়ে বড় অবদান নাসির হোসেনের। এই স্পিনার ১০ ওভারে মাত্র ২৪ রান দিয়ে পেয়েছেন ৩ উইকেট। ইলিয়াস সানির শিকার ২ উইকেট। ২১২ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে অনুস্তুপ মজুমদারের (৫৬) হাফসেঞ্চুরির সঙ্গে নাসির হোসেনের (৪৫) চমৎকার ব্যাটিংয়ে জয় পেতে কোনও অসুবিধা হয়নি শেখ জামালের। চমৎকার বোলিংয়ের পর ব্যাট হাতে অবদান রাখায় ম্যাচসেরার পুরস্কার জিতেছেন নাসির হোসেন। আবাহনীর হয়ে ২টি করে উইকেট পেয়েছেন সাইফউদ্দিন, সানজামুল ইসলাম ও সৌম্য সরকার।

আপনার মতামত লিখুনঃ