ভারতে ফণীর ত্রাণ কাজে ১৪৪ মিলিয়ন ডলার অনুমোদন মোদির

ভারতে ফণীর ত্রাণ কাজে ১৪৪ মিলিয়ন ডলার অনুমোদন মোদিরভারতে ফণীর ত্রাণ কাজে ১৪৪ মিলিয়ন ডলার অনুমোদন মোদির
ভারতে ফণীর ত্রাণ কাজে ১৪৪ মিলিয়ন ডলার অনুমোদন মোদির

ভারতের ওড়িশায় ঘূর্ণিঝড় ফণীর তা-বে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার জন্য ত্রাণ তহবিলে ১৪৪ মিলিয়ন ডলার বরাদ্দ অনুমোদন করেছে দেশটির কেন্দ্রীয় সরকার। দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি জানিয়েছেন, দুর্যোগের এই সময়ে সবার পাশেই রয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন এ খবর জানিয়েছে।

১৯৯৯ সালের ঘূর্ণিঝড়ের পর এটাই এখন পর্যন্ত সবচেয়ে শক্তিশালী বলে মনে করা হচ্ছে। এই ঝড়ে প্রায় ১০ হাজার গ্রাম ও ৫০টি শহর ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। গতকাল শুক্রবার রাত সাড়ে ৯টা থেকে শনিবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত কলকাতা বিমানবন্দরে সব ফ্লাইট বন্ধ রাখা হয়েছে। ইতোমধ্যে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে প্রায় ১১ লাখ মানুষকে।

ফণীর তা-বে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে পুরি। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির প্রতিবেদনে তিনজনের প্রাণহানির কথা বলা হলেও ওড়িশার স্থানীয় এক সংবাদমাধ্যম পাঁচজনের মৃত্যুর কথা জানিয়েছে। এ ছাড়া পুরিতে ঝড়ো হাওয়ার সঙ্গে ছিলো ভারী বৃষ্টি। বাতাসে উপড়ে গেছে বেশ কয়েকটি গাছ।

ধ্বংস হয়ে গেছে একাধিক স্থাপনা। পুরীর জগন্নাথ মন্দির সম্পূর্ণ বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়েছে। ওড়িশা থেকে এখন অন্ধ্রপ্রদেশের কাছাকাছি যাচ্ছে ফণী। ঘূর্ণিঝড়টির প্রভাবে সেখানেও ভারী বৃষ্টিপাত হচ্ছে, সঙ্গে রয়েছে ঝড়ো বাতাস। কর্মকর্তারা জানান, ঘণ্টায় ১৪০ কিলোমিটার বেগ বাতাসে উপড়ে গেছে গাছ ও বৈদ্যুতিক খুঁটি।

রাজস্তানে এক নির্বাচনি জনসভায় মোদি বলেন, উত্তর-পূর্ব ভারতে বসাবাসরত কয়েক লাখ পরিবারের মানুষ ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলা করছেন। কেন্দ্রীয় সরকার ওড়িশা, অন্ধ্র প্রদেশ, তামিল নাড়ু ও পুডুচেরির সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছে। মোদি আরও বলেন, জাতীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বাহিনী, ভারতীয় কোস্টগার্ড, ভারতীয় সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী পুরো শক্তি নিয়ে প্রশাসনের সঙ্গে কাজ করছে।

সংশ্লিষ্ট খবর:

⇒ওড়িষায় ১৯৫ কি.মি. বেগে আঘাত হেনেছে ফণি

⇒মধ্যরাতে বাংলাদেশে প্রবেশ করবে ‘ফণি’

•ফণি: যেসব এলাকার মানুষ সবচেয়ে ঝুঁকিতে

•ঘূর্ণিঝড়ের নাম ফণি হল যেভাবে

•শুক্রবার সকাল নাগাদ ফণি’র প্রভাব শুরু হতে পারে

•যত সময় যাচ্ছে, ফণি ততই শক্তিশালী হয়ে উঠছে, ৭ নম্বর সংকেত

ফণী : আশ্রয়কেন্দ্রে নেওয়া হয়েছে ৪ লাখ মানুষকে

ঘূর্ণিঝড় ‘ফণী’ কেন আলাদা