বুয়েটে র‌্যাগিং ও রাজনীতির সর্বোচ্চ শাস্তি ‘চিরতরে বহিষ্কার’

বুয়েটে র‌্যাগিং ও রাজনীতির সর্বোচ্চ শাস্তি চিরতরে বহিষ্কার
বুয়েটে র‌্যাগিং ও রাজনীতির সর্বোচ্চ শাস্তি চিরতরে বহিষ্কার

এনএনবি : আবরার ফাহাদ হত্যাকান্ডের পর আন্দোলনে নামা শিক্ষার্থীদের দাবি মেনে র‌্যাগিংয়ের নামে নিপীড়ন ও সাংগঠনিক ছাত্ররাজনীতির জন্য শাস্তির মাত্রা নির্ধারণ করে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) কর্তৃপক্ষ।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রকল্যাণ পরিদপ্তরের পরিচালক মিজানুর রহমানের স্বাক্ষরে সোমবার রাতে প্রকাশিত ওই বিজ্ঞপ্তিতে র‌্যাগিং ও রাজনীতি- দুই ক্ষেত্রেই শাস্তির সর্বোচ্চ মাত্রা ঠিক করা হয়েছে ‘চিরতরে বহিষ্কার’।

এর মধ্য দিয়ে শিক্ষার্থীদের সর্বশেষ তিন দাবির সবগুলোই পূরণ হল। সেই সঙ্গে প্রায় দুই মাস ধরে শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ থাকা ক্লাস শুরুর পথ তৈরি হল।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, “ভবিষ্যতে র‌্যাগিং-এর সাথে জড়িতদের এবং সাংগঠনিক রাজনীতির বিভিন্ন কার্যক্রমে জড়িতদের অভিযোগসমূহ মূল্যায়ন ও শাস্তি নির্ধারণ বিষয়ে গঠিত কমিটির রিপোর্ট এর আলোকে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়া সাপেক্ষে অভিযুক্তদের বিভিন্ন মেয়াদে শাস্তি নির্ধারণ করা হয়েছে।”
এর মধ্যে র‌্যাগিংয়ের শাস্তি নির্ধারণ করা হয়েছে তিনি ধাপে।

র‌্যাগিংয়ের কারণে কোনো ছাত্রের মৃত্যু হলে, গুরুতর শারীরিক ক্ষতি বা প্রতিবন্ধিতা তৈরি হলে, মানসিক ভারসাম্যহীনতা তৈরি হলে কিংবা শিক্ষাজীবন ক্ষতিগ্রস্ত হলে অভিযুক্তকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে চিরতরে বহিষ্কার করা হবে। পাশাপাশি তার বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা করবেন বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন কর্মকর্তা।

র‌্যাগিংয়ের নামে মৌখিক বা শারীরিক লাঞ্ছনা, অর্থ বা জিনিসপত্র কেড়ে নেওয়া, উত্ত্যক্ত করা, সাময়িক মানসিক ক্ষতি করা, হুমকি দেওয়া বা শিক্ষাজীবন ক্ষতিগ্রস্ত করার চেষ্টার জন্য সতর্ক করা, জরিমানা করা, হল থেকে চিরতরে বহিষ্কার কিংবা একটি নির্দিষ্ট সময় শিক্ষা কার্যক্রম থেকে বিরত রাখার শাস্তি হতে পারে। পাশাপাশি অভিযুক্তকে ক্লাসে ফেরার আগে মনো-সামাজিক কাউন্সেলিংয়ের মধ্য দিয়ে যেতে হবে।

র‌্যাগিংয়ের পরোক্ষ অংশগ্রহণ কিংবা র‌্যাগিংয়ের সময় উপস্থিতি, বিশ্ববিদ্যালয়ে নবাগতদের কোনো কাজ করতে বাধ্য করার মত ক্ষেত্রে অভিযুক্তকে সতর্ক করা, জরিমানা করা, হল থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা যাবে। পাশাপাশি তাকে বাধ্যতামূলকভাবে সোশাল সাইকোলজি বা এথিকস কোর্স করতে হবে।

আর যে কোনো মাধ্যমে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে সাংগঠনিক রাজনীতিতে কারও সংশ্লিষ্টতা প্রকাশ পেলে, রাজনৈতিক সংগঠনের পদে থাকলে, বিশ্ববিদ্যালয়ে বা বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম ব্যবহার করে মিছিল, মিটিং, পোস্টার টাঙানোর মত রাজনৈতিক কর্মকা-ে অংশগ্রহণ করলে রাজনৈতিক কর্মকা-ে কাউকে উদ্বুদ্ধ বা বাধ্য করলে মাত্রা অনুযাযী সতর্ক করে দেওয়া, জরিমানা করা, সাময়িকভাবে শিক্ষা কার্যক্রম থেকে বিরত রাখা এবং সর্বোচ্চ শাস্তি হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে চিরতরে বহিষ্কার করার সুযোগ থাকবে।

গত ৬ অক্টোবর শেরেবাংলা হলে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের নির্যাতনে আবরারের মৃত্যু হলে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে অচল হয়ে পড়ে বুয়েট। তাদের দাবি মেনে বুয়েটে সাংগঠনিক রাজনীতি নিষিদ্ধ করা হয়। পাশাপাশি নেওয়া হয় আরও কিছু উদ্যোগ।

শিক্ষার্থীদের ১০ দফার কয়েকটি মেনে নেওয়ার পর গত ১৫ অক্টোবর মাঠের আন্দোলন থেকে সরে আসে বুয়েট শিক্ষার্থীরা; তবে মামলার অভিযোগপত্র ও অন্য দাবিগুলো পূরণ না হওয়া পর্যন্ত ক্লাসে না ফেরার ঘোষণা দেয়।
পাঁচ সপ্তাহের তদন্ত শেষে পুলিশ গত ১৩ নভেম্বর ২৫ জনকে আসামি করে অভিযোগপত্র দিলে ক্লাসে ফেরার জন্য বুয়েট কর্তৃপক্ষকে আরও তিনটি শর্ত দেয় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।

অভিযোগপত্রের ভিত্তিতে অভিযুক্তদের বুয়েট থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার; আহসানউল্লাহ, তিতুমীর ও সোহরাওয়ার্দী হলের আগের র‌্যাগের ঘটনায় অভিযুক্তদের অপরাধের মাত্রা অনুযায়ী শাস্তি দেওয়া এবং সাংগঠনিক ছাত্ররাজনীতি ও র‌্যাগের জন্য সুস্পষ্টভাবে বিভিন্ন ধাপে ভাগ করে শাস্তির নীতিমালা করে বুয়েটের অ্যাকাডেমিক কাউন্সিল ও সিন্ডিকেট থেকে অনুমোদন করে বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্ডিন্যান্সে তা অন্তর্ভুক্ত করা ছিল তাদের তিনটি দাবি।
বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সোমবার বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করায় আন্দোলনকারীদের সবগুলো দাবিই পূরণ হল।

আপনার মতামত লিখুনঃ