পড়া না পারায় ঘৃণ্য শাস্তি, অভিভাবকদের বিক্ষোভ

পড়া না পারায় ঘৃণ্য শাস্তি, অভিভাবকদের বিক্ষোভ
পড়া না পারায় ঘৃণ্য শাস্তি, অভিভাবকদের বিক্ষোভ

রংপুরের কাউনিয়া উপজেলার হারাগাছ চতুরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক জামাল উদ্দিন পড়া না পারা শিক্ষার্থীদের ঘৃণ্য কায়দায় শাস্তি দিতেন। তিনি শিক্ষার্থীদের মারধর করতেন এবং একজনের থু থু অন্য শিক্ষার্থীকে চাটাতেন। এতে ক্ষুব্ধ অভিভাবকরা বৃহস্পতিবার দুপুরে ওই শিক্ষকের শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছেন।

গত মঙ্গলবার পঞ্চম শ্রেণীর এক শিক্ষার্থীকে অন্য শিক্ষার্থীর থু থু চাটাতে বাধ্য করেন জামাল উদ্দিন। এ সব ঘটনার পর শিক্ষার্থীরা স্কুলে যেতে না চাওয়ায় অভিভাবকরা বিদ্যালয় ঘেরাও করে অভিযুক্ত শিক্ষকের বিচার দাবি করেন।

স্কুলের পঞ্চম শ্রেণীর শিক্ষার্থী বিলকিস আক্তার, পলি বেগম, ও কুলসুমসহ অনেকে জানায়, ক্লাসে পড়া না পারলে জামাল স্যার তাদের মারধর করেন। মাঝে মাঝে এক ছাত্রীর থু থু অন্য ছাত্রীকে দিয়ে চাটিয়ে নিতেন। এতে কেউ কান্নাকাটি করলেও তিনি বাধ্য করতেন।

দিনের পর দিন এমন শাস্তির কারণে অনেক শিক্ষার্থী স্কুলে যেতে অনীহা প্রকাশ করে। স্থানীয় অভিভাবক আয়নাল হক, আব্দুল মতিন ও হাবিব মিয়া জানান, ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে এর আগেও শিক্ষার্থীদের সঙ্গে খারাপ আচরণের অভিযোগ উঠেছে। তার কারণে শিশুরা স্কুলে যেতে চায় না। এ ঘটনার বিচার দাবি করেন তারা।

পড়া না পারা শিক্ষার্থীদের মারধরের পর থু থু চাটানোর বিষয়টি স্বীকার করেছেন শিক্ষক জামাল উদ্দিন। তিনি বলেন, ‘‘বুঝলাম আমার অপরাধ হয়েছে। কিন্তু আমি ছেলেমেয়েদের ভালোর জন্যই ওদের ভয় দেখাতাম। যাতে ওরা পড়ালেখায় মনোযোগ দেয়।’’

স্কুলের প্রধান শিক্ষক খালেদা আক্তার বলেন, ঘটনার বিষয়ে শনিবার ম্যানেজিং কমিটির সভা আহ্বান করা হয়েছে। সভার পর অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।