প্রতিদিন মিনারেল ওয়াটার দিয়ে গোসল করাতে হয়েছে নায়িকাকে!

প্রতিদিন মিনারেল ওয়াটার দিয়ে গোসল করাতে হয়েছে নায়িকাকে!
প্রতিদিন মিনারেল ওয়াটার দিয়ে গোসল করাতে হয়েছে নায়িকাকে!

ক্রান্তিকাল পার করছে ঢাকাই চলচ্চিত্র। এদিকে মাঝে মাঝে অভিযোগ উঠে, শুটিং সেটে সহযোগিতা করেন না অভিনয়শিল্পীরা। এছাড়া শিডিউল ফাঁসানো, শুটিং সেটে দেরি করে আসা, নিজের পছন্দ মতো পোশাক ব্যবহার করা, এমনকি শুটিং সেটে ৮-১০জন লোক সঙ্গে নিয়ে শুটিং করাসহ বিভিন্নভাবে নির্মাতা ও প্রযোজকদের হেনস্তা করছেন দেশের কিছু অভিনয়শিল্পী। দুঃখজনক হলেও সত্যি, এ তালিকায় নায়িকাদের নামের সংখ্যা বেশি।

গতকাল বুধবার ছিল জাতীয় চলচ্চিত্র দিবস। এ উপলক্ষে ‘বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের বর্তমান অবস্থা এবং উত্তরণের উপায়’ শীর্ষক সেমিনারে শিল্পীদের অসহযোগিতার কথা তুলে ধরেন বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির সভাপতি মুশফিকুর রহমান গুলজার। শিল্পীদের অসহযোগিতা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমাদের শিল্পীরাও সিনেমা নির্মাণের ক্ষেত্রে অসহযোগিতা করেন। যে শিল্পীর সামান্য জনপ্রিয়তা আছে, সেও সম্পূর্ণ পারিশ্রমিক না নিয়ে কাজে যান না। আর চুক্তিবদ্ধ হওয়ার পর শিডিউল নিয়ে শুরু করেন নানা টালবাহানা।’

ঘটে যাওয়া এক ঘটনার বর্ণনা দিয়ে তিনি আরো বলেন, ‘সম্প্রতি ঢাকা থেকে উত্তরবঙ্গে একটি সিনেমার শুটিং করতে গিয়েছিল শুটিং ইউনিট। সেখানে এক নায়িকার জন্য আধুনিক সব ব্যবস্থাই করা হয়েছিল। ডিপ টিউবওয়েলেরও ব্যবস্থা ছিল। কিন্তু ডিপ টিউবওয়েলের পানিতে গোসল করবেন না বলে বেঁকে বসেন। এরপর নায়িকাকে প্রতিদিন মিনারেল ওয়াটার দিয়ে গোসল করাতে হয়েছে! এটা লজ্জাজনক কিনা? এই যদি হয় আমাদের অবস্থা তাহলে সিনেমার অবস্থা কী হবে? এজন্য আমরা সবাই দায়ী। চলচ্চিত্রের ধ্বংসের জন্য কম-বেশি সবাই দায়ী। চলচ্চিত্রের সমস্যা সমাধানের জন্য সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।’

সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ। প্রধান আলোচক ছিলেন র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ। সেমিনারে প্রবন্ধ পাঠ করেন গুণী নির্মাতা মতিন রহমান। এছাড়াও বক্তব্য রাখেন চলচ্চিত্র প্রযোজক ও প্রদর্শক খোরশেদ আলম খসরু, চলচ্চিত্র প্রদর্শক মিয়া আলাউদ্দিন এবং চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান।

আপনার মতামত লিখুনঃ