হোম রংপুর বিভাগ রংপুর প্রতারণার ফাঁদে অসহায় মানুষ সমিতি’র কর্মকর্তারা লাপাত্তা

প্রতারণার ফাঁদে অসহায় মানুষ সমিতি’র কর্মকর্তারা লাপাত্তা

প্রতারণার ফাঁদে অসহায় মানুষ সমিতি'র কর্মকর্তারা লাপাত্তা
প্রতারণার ফাঁদে অসহায় মানুষ সমিতি'র কর্মকর্তারা লাপাত্তা

রংপুর নগরীর বিভিন্ন এলাকায় নামে-বেনামে গড়ে উঠেছে অসংখ্য সমবায় সমিতি। এই সমবায় সমিতির নামে করা হচ্ছে অবৈধ লেনদেন। বেশ কিছুদিন যাবত এলাকায় এসব প্রতিষ্ঠানের আড়ালে চলছে দাদন ব্যবসার মহোৎসব।

এসব সমিতি থেকে টাকা ঋণ নিয়ে অনেকেই হচ্ছেন সর্বশান্ত। কেউ কেউ ঋণের বোঝা মাথায় নিয়ে ঘর-বাড়ি ও ব্যবসা ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। দ্বিগুন মুনাফার লোভ দেখিয়ে গ্রাহকদের কাছ থেকে হাতিয়ে নিচ্ছে লাখ লাখ টাকা। তেমনি রংপুর শাপলা চত্বরে একটি সমিতির অফিসে গেলে তালা ঝুলন্ত অবস্থায় দেখা যায় পরে খবর নিয়ে জানা যায়,রূপসী বাংলা ভোগ্যপন্য সমবায় সমিতি আবার কখনো রুপালী ন্যাশনাল এই নামে আবার কখনো রজনীগন্ধা মহিলা সমিতি নামে চলে।

তারা অনুমোদনহীন একটি সমিতি তবুও কোন অদৃশ্য শক্তির বলে প্রকাশ্যে নগরীতে বইয়ের মাধ্যমে সাধারন মানুষ এর কাছে অর্থ সংগ্রহ করে বহাল আছেন জানতে চান ঐ সমিতির একজন সঞ্চয়কারী খাদিজা বেগম তিনি তার সঞ্চয়ের টাকা উঠানোর জন্য লাপাত্তা এই সমিতির কর্মকর্তা মরিয়ম, রেজোয়ানা খাতুন, সেলিম মিয়া,নাসরিন বেগমসহ অনেকের কাছে ধর্না দিয়ে টাকা তুলতে না পেরে অবশেষে রংপুর মেট্রোপলিটন থানায় অভিযোগ করেন।

সরজমিনে গেলে জানা যায়,জেলার সঞ্চয় ও ক্ষুদ্র ঋণদানকারী ও বিভিন্ন উন্নয়নমূলক নিবন্ধিত মোট সমবায় সমিতির সংখ্যা তিন শ এর উপরে। সমিতিগুলো বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজের জন্য নিবন্ধন হয়ে তাদের সমিতির কর্মকান্ড পরিচালনা করে আসছে। অন্যদিকে অ-নিবন্ধনকৃত সমবায়গুলোর অধিকাংশই সরকারি নিয়মনীতিকে তোয়াক্কা না করে পরিচালিত হচ্ছে। অভিযোগ রয়েছে নগরীর আনাচে-কানাচে গড়ে উঠা অসংখ্য সমবায় সমিতি।

সমবায় সমিতির নিয়ম অনুসারে সমিতির সদস্যদের মধ্যে সঞ্চয়,বীমা, ঋণ কার্যক্রম করতে পারবেন। কিন্তু হাতে গোনা কিছু সমিতি ছাড়া অন্যসব সমিতিগুলো সদস্যদের বাহিরে ঋণ প্রদান করে থাকে। রংপুরের সচেতন মহল এইসব অবৈধ সমবায় সমিতির নামে যারা দাদন ব্যবসা করে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

এদিকে ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া এক বইয়ের উপরে লেখা রজনী গন্ধা মহিলা সমিতি(০৫) আবার রূপসী বাংলা ভোগ্যপন্য সমবায় সমিতি লিঃ নামে একটি সমবায় সমিতির স্থাপিত তারিখ,রেজিস্ট্রেশন কোনো কিছুর তোয়াক্কা না করেই তার আগেই লেনদেন শুরু কিভাবে করে তা জানতে চাইলে সুকৌশলে এড়িয়ে যান কর্মকর্তারা। এ ব্যাপারে ম্যানেজার ছোটন মিয়া এর মোবাইল ফোনে কয়েকবার রিং দিয়েও পাওয়া যায় নাই।

নাম প্রকাশ না করার সর্ত্বে একাধিক ব্যক্তি বলেন, কিছু সমিতি সমবায় নীতিকে অমান্য করে মানুষের অসহায়ত্বয়ের সুযোগ নিয়ে উচ্চ হারে ঋণ দিয়ে থাকেন। সদর ইউনিয়নের একাধিক ব্যক্তি বলেন, তার এলাকার বেশ কিছু মানুষ ওইসব সমিতি থেকে সুদের টাকা নিয়ে সর্বশান্ত হয়েছেন। পরে তারা বাড়ী-ঘর ছেড়ে পরিবার পরিজন নিয়ে পালিয়ে গেছেন দেশের বিভিন্ন স্থানে।

এ বিষয়ে উপজেলা সমবায় অফিসার বলেন, আমার জানামতে নিবন্ধিত সমবায় সমিতির নামে এধরনের কোন অভিযোগ নেই। যদি থাকে অভিযোগটি তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। তবে নিবন্ধন ছাড়া সমিতির বিরুদ্ধে কোনে অভিযোগ থাকলে সেটা আমাদের দেখার বিষয় না। অ-নিবন্ধনকৃত সমবায় সমিতির মাধ্যমে লেনদেন করলে তার দায়-দায়িত্ব তাকেই নিতে হবে।