ঘাসমারা কীটনাশক ছিটিয়ে জমির ধান নষ্ট করেছে দূর্বৃত্তরা

পূর্ব শত্রুতার জেরে কৃষকের চার বিঘা জমির ধানে ঘাসমারা কীটনাশক ছিটিয়ে নষ্ট করেছে দূর্বৃত্তরা
পূর্ব শত্রুতার জেরে কৃষকের চার বিঘা জমির ধানে ঘাসমারা কীটনাশক ছিটিয়ে নষ্ট করেছে দূর্বৃত্তরা

গোবিন্দগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি
গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে পূর্বশত্রুতার জেরে ঘাসমারা কীটনাশক ছিটিয়ে কৃষকের চার বিঘা জমির ধান নষ্ট করে ফেলেছে দূর্বৃত্তরা।

জানা গেছে, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার গুমানীগঞ্জ ইউনিয়নের চক-কোচমুড়ী চকপাড়া গ্রামের মৃত আবু বক্কর সিদ্দীকের ছেলে তারিকুল ইসলাম তার পৈত্রিক সূত্রে পাওয়া চার বিঘা জমিতে বোরো ধান চাষ করছেন। বুধবার সকালে স্থানীয় লোকজন তাদের জমিতে গিয়ে দেখতে পান তারিকুলের জমির ধান পুড়ে হলুদ হয়ে গেছে। খবর পেয়ে তারিকুল জমিতে গিয়ে দেখেন তার জমির সব ধান কীটনাশক ছিটিয়ে নষ্ট করে ফেলা হয়েছে।

তারিক বলেন, গোবিন্দগঞ্জ উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোছাঃ রুনা লায়লাকে বিষয়টি অবগত করেছি।
এ বিষয়ে উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোছাঃ রুনা লায়লা জানান, তিনি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। ২-৩ দিন পূর্বে ওই জমিতে ঘাসমারা কীটনাশক ছিটানো হয়েছে। এতে ধান নষ্ট হয়ে কৃষকের লক্ষাধিক টাকা ক্ষতি সাধিত হয়েছে।

কৃষক তারিকুল ইসলামের অভিযোগ, তার বড় ভাই বদরুল মমিননের সঙ্গে পারিবারিক দ্বন্দ্ব চলছিল। মমিন ঢাকায় একটি কোম্পানীতে চাকরী করেন। বৈশাখীর ছুটিতে এসে শত্রুতাবসতঃ একই গ্রামের রইচ উদ্দীন নামের এক ব্যক্তিকে দিয়ে তার ধানের জমিতে ঘাসমারা কীটনাশক ছিটিয়ে নেয়। তিনি এমন প্রমাণও পেয়েছেন।

একই গ্রামের হারুন নামের এক ব্যক্তি জানালেন, ওই ঘটনা সন্দেহে তারা একই গ্রামের রইচ উদ্দীনকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছেন। জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে রইচ উদ্দীন জানান, তারিকুলের জমির পাশে থাকা তার নিজ জমিতে কয়েক দিন আগে ঘাসমারা কীটনাশক ছিটিয়েছেন তিনি। এতে স্থানীয়রা রইচ উদ্দীনকেই সন্দেহ করছেন।

এ ঘটনায় রইচ উদ্দীনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।তারিকুলের বড় ভাই বদরুলের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, তার পরিবারের মাঝে দ্বন্দ্ব রয়েছে। কিন্তু এমন কাজ তিনি কেন করবেন। তাকে মিথ্যা দোষারোপ করা হচ্ছে। তিনি এ বিষয়ে কিছুই জানেননা। এ রির্পোট লেখা পর্যন্ত থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছিল।