পায়রাবন্দে রাস্তায় গাছ পড়ে ৬ দিন ধরে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন

পায়রাবন্দ (মিঠাপুকুর) প্রতিনিধিঃ মিঠাপুকুরে দেড়শত বছরের  একটি পাইকরের গাছ রাস্তায়   উপড়ে পড়ার ৬ দিনেও অপসারণ না করার ফলে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে।এসময় মানুষ প্রাণে বেঁচে গেলেও গাছ পড়ে দুমড়ে মুচড়ে গেছে একাধিক  ব্যবসা প্রতিষ্ঠান।এছাড়া হাটের ঝুকিপুর্ন গাছ গুলো অপসারণের  আবেদন করেছেন ইজারাদার।পড়ে থাকা গাছটির জন্য সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকায় ভোগান্তীর শিকার  হচ্ছে সাধারন মানুষ। এতে করে মিঠাপুকুর সদর ও পীরগাছাসহ বিভিন্ন এলাকার যানবাহন নিয়ে আসা যাওয়ায় ব্যবসায়ীসহ গুরুত্বপুর্ন ব্যক্তিদের ভোগান্তী পোহাতে হচ্ছে প্রতিনিয়ত।

ক্ষতিগ্রস্ত হোটেল ব্যবসায়ী রুবেল প্রায় ১ লাখ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি করে অবকাঠামো নির্মাণের জন্য আর্থিক সহায়তা চেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর আবেদন করেছেন। ৫ জুলাই সকালে পায়রাবন্দের শালমারা বাজারে এঘনাটি ঘটে।

এলাকাবাসী ও ইজারাদার সুত্রে জানা গেছে,উপজেলার পায়রাবন্দ ইউনিয়নে অবস্থিত শালমারা হাট।দীর্ঘ দিনের এহাটটির যোগাগাগব্যবস্থা বর্তমানে অনেকটাই ভাল।এ হাটের মধ্যস্থলে বেশ কয়েকটি শতশত বছর বয়সী বট,পাইকরসহ নানা প্রজাতির গাছ রয়েছে।যা অতি ঝুকিপুর্ন।বিশাল আকৃতির গাছ গুলোর কিছু শুকিয়ে যাওয়াসহ নষ্ট হয়ে গেছে।ফলে যেকোন মুহু্তে ভেঙ্গে পড়ে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ক্ষয়ক্ষতিসহ প্রাণ হানির ঘটনা ঘটতে পারে বলে আশংকা করছেন ইজারাদার ও ব্যবসায়ীরাসহ সচেতন মহল।

এদিকে শালমারা -ভাংনী সংযোগ রাস্তার পর্বদিকে শালমারা বাজারে অবস্থিত বিশাল আকৃতির একটি পাইকরের গাছ কোন ধরনের  ঝর-বৃষ্টি ছাড়াই একাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের উপরে উপড়ে পড়েছে ৫ জুলাই সকালে। হোটেল ব্যবসায়ী মানিক,রুবেল জানান,আল­াহর রহমতে বেঁচে গেছি,আমরা রবিবার সকালে নাস্তা তৈরী করতেছিলাম এমন সময় গাছটি আস্তে আস্তে আমার দোকানের উপর পড়ে যায়,দোকানের কাস্টমারসহ আমরা দ্রুত বেড়িয়ে যাই।এসময় হোসাইন আহমেদ নাছিমের ঘরেরও ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। বাজার সন্নিকটের ৮৩ বছর বয়সী আলহাজ্ব বজলার রহমান বলেন,এই পাইকর গাছটির বয়স না হলেও প্রায় দেড়শত বছর হবে।বিজেশ্বর বানিয়া নামের এক ভদ্রলোক রোপন করেছিলেন গাছটি।

এবিষয়ে  বর্তমান হাট ইজারাদার খায়ের ও আব্দুল হাকিম গং জানান, ইতি পুর্বের ইজারাদার  বট,পাইকরগাছসহ ঝুকিপুর্ন গাছ গুলো অপসারণের জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে আবেদন করেন।ব্যবসায়ীরাসহ বর্তমান হাট ইজারাদারের দাবি বড় ধরনের বিপদ হবার আগেই হাটের ঝুকিপুর্ন গাছ গুলো অপসারণ করাসহ কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহনের।

এবিষয়ে অত্র ইউপির চেয়ারম্যান ফয়জার রহমান খাঁন শালমারা হাটেরসহ বিভিন্ন হাটে অবস্থিত ঝুকিপুর্ন গাছ গুলো টেন্ডারের মাধ্যমে অপসারণ করা খুবই জরুরী।

তিনি আরো বলেন,বর্তমানে উপড়ে পড়া গাছটি কেটে রাখা হচ্ছে তবে কাজ শেষ হতে আরো ৭ দিন সময় লাগতে পারে।

আপনার মতামত লিখুনঃ