হোম জাতীয় পরবর্তী আদমশুমারি ও গৃহগণনা ২০২১ সালে

পরবর্তী আদমশুমারি ও গৃহগণনা ২০২১ সালে

পরবর্তী আদমশুমারি ও গৃহগণনা ২০২১ সালে: পরিকল্পনামন্ত্রী
পরবর্তী আদমশুমারি ও গৃহগণনা ২০২১ সালে: পরিকল্পনামন্ত্রী

বাংলাদেশে সবশেষ ২০১১ সালে আদমশুমারি ও গৃহগণনা অনুযায়ী বাংলাদেশের জনসংখ্যা ছিল ১৪ কোটি ৯৭ লাখ ৭২ হাজার ৩৬৪ জন। পরবর্তী আদমশুমারি ২০২১ সালে অনুষ্ঠিত হবে বলে সংসদে জানিয়েছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বী মিয়ার সভাপতিত্বে জাতীয় সংসদ অধিবেশনে প্রশ্নোত্তর পর্বে আওয়ামী লীগের সদস্য আলী আজমের প্রশ্নের উত্তরে এ তথ্য জানান পরিকল্পনা মন্ত্রী।

তিনি জানান, সবশেষ আদমশুমারি অনুযায়ী মোট জনসংখ্যার মধ্যে পুরুষ ৭ কোটি ৪৯ লাখ ৮০ হাজার ৩৮৬ জন ও নারী ৭ কোটি ৪৭ লাখ ৯১ হাজার ৯৭৮ জন। ২০১৩ সালে জাতীয় সংসদে পরিসংখ্যা আইন-২০১৩ পাস হয় এবং এ আইন অনুসারে আদমশুমারিকে জনশুমারি নামে অভিহিত করা হয়েছে।

দশ বছরের ধারাবাহিকতায় পরবর্তী জনশুমারি ও গৃহগণনা-২০২১ সালে অনুষ্ঠিত হবে। এদিকে, বিশ্বের বৃহত্তম ব-দ্বীপ বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তন ও প্রাকৃতিক দুর্যোগের ফলে বিশ্বে সবচেয়ে ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে বলে জানিয়েছেন পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নান।

জাতীয় সংসদের চলমান অধিবেশনে মানিকগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য মমতাজ বেগমের তারকা চিহ্নিত প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক আন্তঃসরকার প্যানেল (আইপিসিসি) বাংলাদেশকে জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম ঘোষণার পর থেকে বর্তমান সরকার জলবায়ু পরিবর্তনকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে তা মোকাবিলায় পদক্ষেপ নিয়েছে।

বিভিন্ন অংশীজনের অংশগ্রহণের মাধ্যমে অভিযোজন ও স্বল্প কার্বন নির্গমনের (এলসিডি) জন্য বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তন কৌশল ও কর্মপরিকল্পনা (বিসিসিএসপি) প্রণয়ন করা হয়েছে। মন্ত্রী বলেন, পরিবেশগত চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার জন্য জাতিসংঘ পরিবেশ কর্মসূচির (ইউএনিইপি) সহায়তায় ‘জাতীয় টেকসই উন্নয়ন কৌশল’ (এনএসডিএস) প্রণয়ন করা হয়েছে।

পরিবেশ, প্রাকৃতিক সম্পদ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনাকে অন্যতম কৌশলগত অগ্রাধিকার হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে এবং টেকসই উন্নয়নের জন্য প্রয়োজনীয় বিস্তৃত কর্মপ্রক্রিয়া সুস্পষ্ট করা হয়েছে।