ঢাকায় অসহনীয় যানজট

ঢাকার যানজট এখন সংশ্লিষ্ট সবারই মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। রাজধানীতে ছোট গাড়ির সংখ্যা বেড়েছে। অ্যাপভিত্তিক সেবার সঙ্গে বেড়েছে মোটরসাইকেলের সংখ্যা। মেট্রো রেলের কাজ চলায় রাজধানীর অনেক প্রধান সড়কই সংকুচিত হয়ে গেছে। অন্যদিকে সড়কের যানজট নিরসনসহ শৃঙ্খলা রক্ষার জন্য ১৪ বছর আগে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে করা সুপারিশগুলো এখনো বাস্তবায়িত হয়নি।

ফলে ঢাকার রাস্তার কোনো উন্নতি হয়নি। যানজটের সঙ্গে সঙ্গে বেড়েছে মানুষের ভোগান্তি। ২০০৪ সালে ঢাকায় গাড়ি চলাচলের গড় গতি ছিল ঘণ্টায় ২১ কিলোমিটার, ২০১৮ সালে তা নেমে এসেছে গড়ে সাত কিলোমিটারে। একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের জরিপ বলছে, ঢাকায় এখন ২৫ মিনিটের দূরত্ব অতিক্রম করতে সময় লাগে ৬৩ মিনিট। গত ফেব্রুয়ারিতে প্রকাশিত এক ট্রাফিক ইনডেক্স অনুযায়ী বিশ্বের ২০৭টি শহরের মধ্যে যানজটে শীর্ষে আছে ঢাকা। সরকারি হিসাবে যানজট নিরসনে গত ১০ বছরে ৪৩ হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ করা হয়েছে।

মেগা প্রকল্পে ব্যয় না করে এই টাকায় কম্পানিভিত্তিক বাস সার্ভিস চালু করতে পারলে যানজট নিরসনে অনেক বেশি সুফল মিলত বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। ঢাকার কৌশলগত পরিবহন পরিকল্পনা বা এসটিপিতে প্রাধিকারভুক্ত সুপারিশগুলোর মধ্যে ছিল ঢাকার ফুটপাত যাত্রীবান্ধব করা, ৫০টি সংযোগ সড়ক তৈরি করা, কম্পানিভিত্তিক বাস পরিচালনা করা। কোনোটিই সময়মতো হয়নি। কম্পানিভিত্তিক বাস পরিচালনার কাজ এখনো চলছে। আবার ঢাকার পরিবহন ব্যবস্থাপনার ৩২টি সংস্থার মধ্যে কোনো সমন্বয় নেই। অন্যদিকে রাস্তার শত ভাগ ব্যবহার নিশ্চিত করা, ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণ, বৃত্তাকার নৌপথ চালু করা, পার্কিং নীতিমালা প্রণয়ন ও মেট্রো রেল চালুর বিষয়ও আলোচিত হয়েছে বিভিন্ন সময়ে। কিন্তু কোনো ফল পাওয়া যায়নি। প্রকল্পের পর প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। প্রকল্পে অর্থ বরাদ্দ হয়েছে। অর্থ খরচও হয়েছে। তাতে কোনো ফল লাভ হয়নি; বরং যাত্রী সাধারণের দুর্দশা বেড়েছে।

ঢাকার যানজট কমাতে ও যাত্রীসেবার মান বাড়াতে রুট ধরে ধরে কম্পানিভিত্তিক বাস চালুর কোনো বিকল্প নেই। একই সঙ্গে বিআরটিসির বাস আরো বেশি পরিমাণে ঢাকার রাস্তায়, ক্রমান্বয়ে সব রুটে চালু করার বিষয়টি ভাবতে হবে। তাতে হয়তো বেসরকারি বাস মালিকদের দৌরাত্ম্য কিছুটা হলেও কমবে। ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণব্যবস্থা অবশ্যই আধুনিক করতে হবে। রাস্তায় পার্কিং বন্ধ করাসহ নির্দিষ্ট স্টপেজে বাস থামা ও যাত্রী ওঠানো-নামানোর বিষয়টি নিশ্চিত করতে পারলে ঢাকার যানজট অনেকাংশে কমে যাবে। ঢাকার গণপরিবহনব্যবস্থা যাত্রীবান্ধব করতে না পারলে অচিরেই মহানগরী যন্ত্রণার নগরীতে পরিণত হবে। বিষয়টি মাথায় রেখে ঢাকার গণপরিবহনব্যবস্থা নতুন করে গড়ে তোলার পরিকল্পনা করতে হবে। অন্যথায় যানজট থেকে কোনোভাবেই রেহাই মিলবে না। আমরা আশা করব, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বিষয়টি নিয়ে ভাববে।

আপনার মতামত লিখুনঃ