ডেঙ্গু আক্রান্তে রাবি শিক্ষার্থী, ক্যাম্পাস জুড়ে আতঙ্ক

মাইনুল ইসলাম, রাবি প্রতিনিধি: সম্প্রতি ডেঙ্গু মহামারি আকার ধারণ করায় দেশের সর্বত্র আক্রান্ত ছড়িয়ে পড়েছে। গত এক সপ্তাহে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই শিক্ষার্থীসহ, ইডেন কলেজের এক শিক্ষার্থী ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। এমন পরিস্থিতিতে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সদস্যদের মধ্যে ডেঙ্গুর আতঙ্ক বিরাজ করছে। তবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বলছে ক্যাম্পাসে এডিস মশার বিস্তার নেই।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এ পর্যন্ত রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ৯ শিক্ষার্থী ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছে। ডেঙ্গু ছড়ানোর প্রতিকার ও প্রতিরোধে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে দ্রুত কার্য্যকরী পদক্ষেপ নেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছে শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও কর্মচারীরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সংস্কৃত বিভাগের শিক্ষার্থী ফাইজুল ইসলাম বলেন, যেহেতু বর্তমানে ৯ শিক্ষার্থী ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছে তারমানে এটা নিশ্চিত যে রাজশাহীতেও ডেঙ্গুর আবির্ভাব ঘটেছে। এরপর যে অন্য শিক্ষার্থীদের মাঝে তা ছড়াবে না এর নিশ্চয়তা কি? তাই ক্যাম্পাসে সকল শিক্ষার্থীদের মাঝে ডেঙ্গুর আতঙ্ক বিরাজ করছে। বিভিন্ন জায়গায় পানি জমে মশা বৃদ্ধি পাচ্ছে। একবার ডেঙ্গুর সংক্রমণ শুরু হয়ে গেলে তা বিরাট আকার ধারণ করতে পারে।

এ বিষয়ে বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেসা মুজিব হলের আবাসিক শিক্ষার্থী শিফাত তামান্না সৃষ্টি বলেন, ক্যাম্পাস ও হলের আশে পাশে ঝোঁপঝাড়, জঙ্গল ও ড্রেনগুলো নিয়মিত পরিস্কার না করায় মশার উপদ্রব বেড়েই চলছে। যার ফলে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে আমাদের। বিশেষ করে বিকেল হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই মশার উপদ্রব বেড়ে যায়। মশার কামড়ে দিনের বেলাও চেয়ার টেবিলে বসে পড়তে পারি না। এমনকি রাতে বিছানায় ঘুমাতে গেলেও মশার যন্ত্রণায় ঘুমাতে পারি না। এদের মাঝে যে এডিস মশার নাই সেটা কিভাবে জানবো। মশা নিধনে হল বা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়ার আহবান জানায় সে।

গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. সাজ্জাদ বকুল জানান রাজশাহীতে এখনও ডেঙ্গুর প্রকোপ তেমন একটা দেখা যায়নি। তবে ক্যাম্পাসে ঝোপঝাঁড় থাকায় বিভিন্নস্থানে মশা বিস্তারের সুযোগ রয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের জ্যেষ্ঠ মেডিকেল অফিসার নাজিম উদ্দিন জানান, জ্বর নিয়ে অনেক রোগী আমাদের কাছে চিকিৎসার জন্য আসলেও তাদেরকে দেখে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছে বলে মনে হয়নি। তবে যারা ঢাকা থেকে আসছে তাদেরকে একটু সচেতন থাকার পরামর্শ দেন তিনি।

মশক নিধনে প্রশাসনের পক্ষ থেকে কি ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র উপদেষ্টা ড. লায়লা আরজুমান বানু বলেন,‘৯ শিক্ষার্থী আক্রান্ত হয়েছে বলে জানতে পেরেছি। তবে তারা বাইরে থেকে আক্রান্ত হয়ে ক্যাম্পাসে এসেছে। এছাড়া ক্যাম্পাসে এডিস মশার বিস্তার নেই। তবুও পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন অভিযান চলছে প্রতিনিয়ত। ক্যাম্পাসে মশার বিস্তার রোধে বিভিন্নস্থানে ড্রেন পরিস্কার করা হচ্ছে।’

আপনার মতামত লিখুনঃ