কুড়িগ্রামে টানা শৈত্যপ্রবাহে চরম ভোগান্তি

কুড়িগ্রামে টানা শৈত্যপ্রবাহে চরম ভোগান্তি

কুড়িগ্রাম ব্যুরো: ২২-১২-১৯:
কুড়িগ্রামে চারদিন ধরে দেখা মিলছে না সূর্যের। টানা শৈত্য প্রবাহের কারণে বেড়েছে সাধারণ মানুষের মধ্যে চরম ভোগান্তি। এছাড়াও শ্রমজীবী ও কর্মজীবী মানুষ প্রচন্ড ঠান্ডায় কাজে বের হতে হিমসীম খাচ্ছেন। ঘন কুয়াশার সাথে ঝড়ছে গুড়িগুড়ি বৃষ্টির ফোটা। ফলে প্রয়োজন ছাড়া মানুষ ঘরের বাইরে কম বের হচ্ছেন।

এছাড়াও ঘন কুয়াশার কারণে বিঘিœত হচ্ছে যান চলাচল। হিমেল ঠান্ডা হাওয়া থেকে বাঁচতে আগুন জ¦ালিয়ে শীত নিবারণ করছে শ্রমজীবী মানুষ।

কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা: শাহিনুর রহমান সরদার জানান, গত ২৪ ঘন্টায় কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে ২শ১৬ জন রোগী ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এদের মধ্যে শ্বাস কষ্ট নিয়ে ভর্তি হয়েছে ১৪ জন শিশু এবং ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হয়েছেন ২৮ জন।

জেলা প্রশাসন থেকে ৫১ হাজার কম্বল বিতরণ করা হলেও শীতে আক্রান্ত প্রায় ৬ লাখ প্রান্তিক মানুষ চরম ভোগান্তির মধ্যে দিনাতিপাত করছে। এখন পর্যন্ত তেমন একটা সাঁড়া মেলেনি সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ের সংগঠনগুলো থেকে। জনপ্রতিনিধিদের কাছ থেকে কোন শীতবস্ত্র পায়নি বলে জানিয়েছে শীতার্ত মানুষ।

এদিকে কুড়িগ্রামের উলিপুর নাগরাকুড়া,সদরের হলোখানাএবং যাত্রাপুর ইউনিয়ন মাঠে ২ সহ¯্রাধিক দুঃস্থ ্ও শীর্তাতদের মাঝে যমুনা ব্যাংক ফাউন্ডেশন এর উদ্যোগে কম্বল বিতরন করা হয়েছে।এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মন্জুরুল আহসান শাহ জোনাল হেড যমুনা ব্যাংক রাজশাহী সহ অন্নান্য কর্মকর্তা বৃন্দ।

রাজারহাট কৃষি আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুবল চন্দ্র সরকার জানান, গত চারদিন ধরে শৈত্যপ্রবাহ স্থিতিশীল রয়েছে। ২৪ কিংবা ২৫ ডিসেম্বর গুড়ি গুড়ি বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনাও রয়েছে। রোববার সর্বনি¤œ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ১২ ডিগ্রি সেলসিয়াসে।