করোনা ভাইরাস : বৈশ্বিক জরুরি অবস্থা ঘোষণা

করোনা ভাইরাস : বৈশ্বিক জরুরি অবস্থা ঘোষণা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:নভেল করোনা ভাইরাস চীনের বাইরে অন্যান্য দেশে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ায় বৈশ্বিক জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

জেনেভায় স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার রাতে এই ঘোষণা দিয়েছেন সংস্থাটির প্রধান টেড্রোস আধানম গেবরিয়াসাস।

তিনি বলেছেন, চীনে যা ঘটছে কেবল তার জন্য নয়, বরং অন্যান্য দেশে যা ঘটছে তা-ই এই ঘোষণার প্রধান কারণ।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, শুক্রবার পর্যন্ত পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, চীনে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ২১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে।

করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের কেন্দ্র চীনের হুবেই প্রদেশেই মারা গেছে ২০৪ জন। এছাড়া সারা দেশে আক্রান্ত হয়েছে ৯ হাজার ৬৯২ জন।

চীনের বাইরে আরো ১৮টি দেশে প্রায় ১০০ লোক এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। তবে এসব দেশে কেউ এখনো মারা যায় নি।

জেনেভায় সংবাদ সম্মেলনে টেড্রোস আধানম নভেল করোনা ভাইরাসকে ‘নজিরবিহীন প্রাদুর্ভাব’ বলে আখ্যা দিয়ে  বলেন, এটি মোকাবেলায় অভূতপূর্ব সাড়া পাওয়া গেছে।

করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় চীন যে ব্যতিক্রমী পদক্ষেপ নিয়েছে তার প্রশংসা করেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান। চীনের ওপর কোনো ভ্রমণ সতর্কতা জারির কারণও নেই বলে জানিয়েছেন তিনি।

প্রসঙ্গত, জনস্বাস্থ্য সংকটের আন্তর্জাতিক উদ্বেগ হিসেবে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ‘বৈশ্বিক জরুরি অবস্থা ঘোষণাকে’ দেখা হয়।

এটি আইনগতভাবে বাধ্য কোনো ঘোষণা নয়। এর মাধ্যমে জাতিসংঘের সদস্য দেশগুলিকে জানিয়ে দেওয়া হয়, পরিস্থিতিকে মারাত্মক হিসেবে বিবেচনা করছে সংস্থাটি।

২০০৯ সালে সোয়াইন ফ্লু, ২০১৪ সালে পোলিও, ২০১৬ সালে জিকা ভাইরাস এবং ২০১৪ ও ২০১৯ সালে ইবোলা ভাইরাস মোকাবেলায় বৈশ্বিক জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

আরও পড়ুন