উৎসাহ উদ্দীপনায় ঈদুল আযহা উদযাপনে প্রস্তুত রংপুর

উৎসাহ উদ্দীপনায় ঈদুল আযহা উদযাপনে প্রস্তুত রংপুর

হাসান গোর্কি, স্টাফ রিপোর্টার॥ আগামীকাল সোমবার বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনা ও ধর্মীয় ভাব গাম্ভির্যের মধ্যদিয়ে রংপুরে পবিত্র ঈদুল আযহা উদযাপিত হবে। এ উপলক্ষে ব্যাপক কর্মসূচী নেয়া হয়েছে।

কর্মসূচী অনুযায়ী রংপুরে ঈদুল আযহার প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হবে কালেক্টরেট ঈদগাহে সকাল সাড়ে ৮ টায়। বৃষ্টি হলে রংপুরের ঈদের প্রধান জামাত হবে কোর্ট জামে মসজিদে সকাল পৌনে ৯ টায় পরে ২য় জামাত হবে সোয়া ৯টায়। এছাড়া, অন্যান্য ঈদের মাঠ ও মসজিদে প্রধান জামাতের সাথে সংগতি রেখে ঈদের নামাজের সময় সূচী নির্ধারন করা হয়েছে।

এছাড়া, পুলিশ লাইন্স মাঠ, মুন্সিপাড়া ঈদগাহ ও মুলাটোল আলীয়া মাদ্রাসায় সকাল সাড়ে ৮ টায় এবং কেরামতিয়া জামে মসজিদে ৯টায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হ্েব। এছাড়া, শালবন মিস্ত্রিপাড়া জামে মসজিদে প্রথম জামাত সকাল ৮টায়, মন্ডল পাড়া বড় ঈদগাহ ও রংপুর দামুদরপুর বড় ময়দান ঈদগাহ মাঠে পবিত্র ঈদুল আযহার নামাজ সকাল ৯টায় অনুষ্ঠিত হবে।

রংপুর মেডিকেল কলেজ কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ সংলগ্ন ঈদগাহ মাঠে সকাল ৮টায় এবং সাতমাথা জামে মসজিদ ও ধাপ ষ্টাফ কোয়ার্টার জামে মসজিদ, বাবুখাঁ ঈদগাহ মাঠ ও খটখটিয়া জামে মসজিদে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে সকাল ৯ টায়।

রংপুর সদর উপজেলা ও মিঠাপুকুর উপজেলা পরিষদ ঈদগাহে এবং পীরগাছা কারবালা মাঠ, তারাগঞ্জ চৌপথী ঈদগাহ ও গঙ্গাচড়ার পাইকান জামে মসজিদে সকাল ৯ টায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে।কাউনিয়া কেন্দ্রীয় ঈদগাহ, গঙ্গাচড়া ও পীরগঞ্জে কেন্দ্রীয় ঈদগাহে সকাল সাড়ে ৯টায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে। বদরগঞ্জের চান্দামারী কারামতিয়া ঈদগাহে ১০টায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে বলে জানা গেছে।

দেশের অন্যান্য স্থানের মত বিভাগীয় নগরী রংপুরে ঈদ উৎসব উদযাপনে অন্যান্য কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে সরকারি বেসরকারি ভবনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, ঈদ জামাতে বিশেষ মোনাজাত এবং হাসপাতাল, এতিমখানা, কারাগার ও শিশু সদনগুলোতে বিশেষ খাবার পরিবেশন। ঈদ উপলক্ষে সিটি করপোরেশন এলাকার সড়ক ও সড়কদ্বীপ সমুহ জাতীয় পতাকা ও ঈদ মোবারক লেখা পতাকাদিয়ে সজ্জিত করা হচ্ছে।

ঈদ উপলক্ষে হাট বাজার ও যাতায়াত ব্যবস্থায় পুলিশ র‌্যাব আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে নেয়া হয়েছে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা, সিটি করপোরেশনের উদ্যোগে সিটি করপোরেশন এলাকার ৩৩ ওয়ার্ডে ১২২ টি স্থান নির্বাচন করা হয়েছে পশু কোরবানীর জন্য। এসব নির্ধাচিত স্থানে পশু কোরবানী করার জন্য নগরবাসীকে অনুরোধ জানিয়েছেন মেয়র মোস্তাফিজার রহমান।

এছাড়াও কোরবানীর পশুর বর্জ্য অপসারনের জন্য পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। সিটি করর্পোরেশনের ৪ টি হাটসহ কোরবানির পশুর বর্জ্য অপসারণে ৬০৫ জন পরিচ্ছন্নতাকর্মী কাজ করবে। ঈদের দিন দুপুর ২টা থেকে পরবর্তী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে রংপুরে পশু বর্জ্য অপসারণ করবে। বর্জ্য অপসারনের জন্য ২০টি ট্রাক, ১২০টি ভ্যান ও প্রয়োজনীয় ব্লিচিং সরবরাহ করা হয়েছে।

আপনার মতামত লিখুনঃ