উচ্চ রক্তচাপের রোগীর ডায়েটে ৫ খাবার

উচ্চ রক্তচাপের রোগীর ডায়েটে ৫ খাবার

আমাদের ধারণা উচ্চ রক্তচাপে শুধু ভোগেন চল্লিশোর্ধ্বরা। আদতে বিষয়টি এমন নয়। এ রোগ হতে পারে যেকোনো বয়সী মানুষের। তবে সঠিক ডায়েট করলে ঝুঁকি কমবে স্ট্রোক, হার্ট অ্যাটাক ও কিডনি বিকল হওয়া থেকে। নিচে উচ্চ রক্তচাপ রোগীদের ডায়েটে উপকারী পাঁচটি খাবার সম্পর্কে আলোচনা করা হলো।

মৌরি পানিমৌরি পানি: মৌরি হলো বর্ষজীবী উদ্ভিদ। এর বীজ অনেকটা রাঁধুনী বীজের মতো। মৌরির বীজে এন্টিহাইপারটেনসিভ ও অ্যান্টিস্পাসোমডিক থাকে। যা আমাদের দেহের উচ্চ রক্তচাপের স্তরের জন্য আশ্চর্যভাবে কাজ করে। প্রতিরাতে এক কাপ পানিতে এক চা-চামচ শুকনো বা ভাজা মৌরি বীজ ভিজিয়ে রাখুন। পরের দিন সকালে খালি পেটে পান করুন। উচ্চ রক্তচাপসহ বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধ করবে।

বিটরুট জুসবিটরুট জুস: বিট হলো ক্রিমসন রেড সমৃদ্ধ ফাইবার ও পটাসিয়ামযুক্ত ফল। প্রতিদিন বিটরুটের জুস পান করলে দেহের রক্ত চলাচল বাড়ে। ফলে রক্তচাপ কমে ও শরীর বিষমুক্ত হয়। পাশাপাশি খারাপ কোলেস্টেরলও কমায়।

পাকা কলাপাকা কলা: অতি জনপ্রিয় সুস্বাদু ও পুষ্টিকর ফল কলা, যা সারাবছরই পাওয়া যায়। একটি পাকা কলায় ৩৫৮ মিলিগ্রাম পটাসিয়াম থাকে। যা দেহের রক্তের হিমোগ্লোবিন বাড়িয়ে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে। এজন্য প্রত্যককে একটি করে প্রতিদিন পাকা কলা খাওয়া উচিত।

অ্যাভোকাডোঅ্যাভোকাডো: অ্যাভোকাডো উচ্চ ফ্যাট ও ভিটামিনসমৃদ্ধ একটি বিদেশি ফল। পুষ্টিকর আভোকাডোতে থাকা পটাসিয়াম উচ্চ রক্তচাপের সঙ্গে যুদ্ধ করে রক্তচাপ ও ধমনীর চাপকে হ্রাস করে। এটি খেলে হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোকের ঝুঁকি কমে। রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ থাকে।

পালং শাকের স্যুপপালং শাকের স্যুপ: পালং শাকে প্রচুর আয়রন ও ভিটামিন ‘সি’ থাকায় রক্তস্বল্পতা দূর করে। ফলে রক্তচাপ কমায়।

আপনার মতামত লিখুনঃ