ঈদের চতুর্থ দিনেও তিস্তা সেতুতে মানুষের উপচে পড়া ভীড়

ঈদের চতুর্থ দিনেও তিস্তা সেতুতে বিনোদন প্রেমী মানুষের উপচে পড়া ভীড়
ঈদের চতুর্থ দিনেও তিস্তা সেতুতে বিনোদন প্রেমী মানুষের উপচে পড়া ভীড়

কাউনিয়া (রংপুর) প্রতিনিধি : কাউনিয়া উপজেলার মানুষের ঈদ-পূজা সহ বিভিন্ন উৎসবে বিনোদনের তেমন কোন প্রাকৃতিক ও নান্দনিক জায়গা না থাকায় তিস্তা রেলওয়ে ও সড়ক সেতু কে বিনোদনের একমাত্র স্থান হিসেবে বেছে নিয়েছে বিনোদন প্রেমী মানুষেরা।

মুসলমান সম্প্রদায়ের দুই ঈদ ও হিন্দু সম্প্রদায়ের দূর্গা পূঁজার সময় হাজার হাজার মানুষের ঢল নামে তিস্তা নদীর পাড়ে সেতু এলাকায়। তিস্তা পাড়ের নির্মল হাওয়া, নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা ও নৌকা ভ্রমন আনন্দ প্রিয় মানুষ কে ক্ষনিকের জন্য হলেও অন্য জগতে নিয়ে যায়। কেউ কেউ শ্যালো চালিত আবার কেউ ডিঙ্গি নৌকা ভাড়া করে তিস্তা নদীর এ প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে ঘুড়ে বেড়ায়। তিস্তা সেতুর উত্তর প্রান্তে শিশুদের জন্য গড়ে তোলা হয়েছে নাগরদোলা, উপরে ওঠে নিচে নামা সহ বেশ কয়েকটি শিশু খেলার সামগ্রী।

সেগুলোও দেখভাল না করায় নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। কিন্তু দক্ষিনে অর্থাৎ কাউনিয়া প্রান্তে শিশুদের জন্য এ ধরেনের কোন ব্যবস্থা না থাকায় শিশুদের শুধু সেতুর উপর হাটা চলা করে মলিন মুখে বাড়ী ফিড়তে হয়। এছাড়াও তিস্তা সড়ক সেতুর নিরাপত্তার জন্য সেতুতে লাগানো বাতি গুলো রাতে ঠিকমতো জ্বলে না। এ কারনে বিনোদন প্রেমী মানুষদের সন্ধার পূর্বেই বাড়ীতে ফিরতে হয়। তা নাহলে ছিনতাইএর কবলে পরতে হয়।

সব মিলে ঈদের দিনে তিস্তা সেতুর নীচে গ্রামীন ঐতিহ্য নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা বিনোদন প্রেমীদের একটু আলাদা ধরনের আনন্দ দেয়। তিস্তা সেতু পাড়ে ঘুড়তে আসা বিনোদন প্রেমী আমসা.র সাবেক সভাপতি সাব্বির হোসেন, ব্যবসায়ী জামিল ভুইয়া,

প্রভাষক আঃ সালাম, ছাত্র জাহিদ হাসান জানান, তিস্তা সেতুর দুই প্রান্তে রেল ও সড়ক জনপদের সরকারী অনেক জায়গা রয়েছে এটিকে পর্যটন শিল্পের আওতায় এনে পিকনিক স্পট সহ বিনোদন পার্ক গড়ে তোলা হলে সরকারের যেমন রাজস্ব আয় হবে তেমনি শিশুরাসহ বিনোদন প্রেমী মানুষ নির্মল বিনোদন সুবিধা পেত। বালাপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান আনছার আলী জানান এখানে একটি বিনোদন স্পট তৈরীর চেষ্টা করছি।

নির্বাহী অফিসার মোছাঃ উলফৎ আরা বেগম জানান একটি প্রকল্পের মাধ্যমে এখানে একটি বিনোদন স্পট তৈরীর পরিকল্পনা চলছে। আশা করছি হবে। আনন্দের তেমন কিছু না থাকলেও ঈদের দিন থেকে শুরু করে ঈদের চতুর্থ দিনেও হাজার হাজার মানুষের পদভরে মুখরিত হয়ে ওঠেছে কাউনিয়ার তিস্তা সেতু এলাকা।

আপনার মতামত লিখুনঃ