ইতিহাসে প্রতিদিন আজ (শনিবার ) ২৪ আগস্ট’২০১৯

আবু জাফর শামসুদ্দীনের মৃত্যু
প্রথিতযশা লেখক, সাংবাদিক আবু জাফর শামসুদ্দীন ১৯৮৯ সালের এই দিনে মৃত্যুবরণ করেন। ধর্ম নিরপেক্ষতা, বাঙালি জাতীয়তাবাদ ও সমাজতান্ত্রিক অর্থনীতিতে বিশ্বাসী প্রগতিশীল লেখক ছিলেন তিনি। উপন্যাস, ছোট গল্প ও মননশীল প্রবন্ধ রচনা করে সুনাম অর্জন করেছেন।

তার লেখা উপন্যাসগুলোর মধ্যে, পরিত্যক্ত স্বামী, মুক্তি, ভাওয়াল গড়ের উপাখ্যান, পদ্মা-মেঘনা-যমুনা, সংকর সংকীর্তন, প্রপঞ্চ, দেয়াল, গল্পগ্রন্থের মধ্যে জীবন, শেষ রাতের তারা, রাজেন ঠাকুরের তীর্থযাত্রা, ল্যাংড়ী, নির্বাচিত গল্প, প্রবন্ধের মধ্যে চিন্তার বিবর্তন পূর্বপাকিস্তানী সাহিত্য, ঝড়পরড়ষড়মু ড়ভ ইবহমধষ ঢ়ড়ষরঃরপং. সোচ্চার উচ্চারণ ইত্যাদি। উপন্যাসে ১৯৬৮ সালে বাংলা একাডেমি পুরস্কার পেয়েছেন আবু জাফর শামসুদ্দীন। সাংবাদিকতায় মহান একুশে পদক পেয়েছেন ১৯৮৩ সালে।

আবু জাফর শামসুদিনের জন্ম ১৯১১ সালে গাজীপুরের দক্ষিণবাগ গ্রামে। শুরুতে তিনি ছিলেন মাদ্রাসা লাইনে। ১৯২৯ সালে ঢাকা আলিয়া মাদ্রাসা পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে কিছুদিন ঢাকা ইন্টারমিডিয়েট কলেজে অধ্যয়ন করেন।

পরে চলে যান কলকাতায়। সেখানে গিয়ে শুরু করেন সাংবাদিকতা। দৈনিক সুলতানের সহসম্পাদকের চাকরি ছেড়ে ১৯৩১ সালে সরকারের সেচ বিভাগে কেরানীর চাকরি নেন।

১৯৪২ সালে এ চাকরি ছেড়ে বিমানে চাকরি করেন কিছুদিন। আবার শুরু করেন সাংবাদিকতা। যোগ দেন দৈনিক আজাদে। ১৯৪৮ সালে দৈনিক আজাদ কলকাতা থেকে ঢাকায় স্থানান্তরিত হলে তিনি এর সহকারী সম্পাদক হন। ১৯৫০ সালে আজাদ থেকে অব্যাহতি দেয়া হলে পুস্তক ব্যবসায় জড়িত হন।

১৯৫১ তে সাপ্তাহিক ইত্তেফাক সম্পাদ। শুরু করেন। ৫১’র ভাষা আন্দোলনে সক্রিয় হন জোরেসোরে। ৫৭ তে ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির রাজনীতিতে জড়িয়ে যান। কিছুদিন ঢাকা জেলা কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। ৬১ তে বাংলা একাডেমীতে যোগ দেন অনুবাদ অধ্যক্ষ হিসেবে। অবসর নেন ৭২-এ। আবার পত্রিকায় যোগদান। দৈনিক পূর্বদেশ, সংবাদে চাকরি করেছেন বেশ কিছুদিন।

শেষদিকে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত হন। বাংলাদেশ শান্তি পরিষদের সভাপতি, বাংলা একাডেমীর নির্বাহী সদস্য, বঙ্গবন্ধু পরিষদের সদস্য ছাড়াও বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাংগঠনিক গুরুদায়িত্বে ছিলেন মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত।

১৮২১ খ্রীস্টাব্দের এই দিনে মেক্সিকো স্পেনের উপনিবেশ থেকে মুক্ত হয়ে স্বাধীনতা লাভ করে। মেক্সিকো খ্রীস্ট পূর্ব প্রায় পাঁচ হাজার বছর আগের প্রাচীন সভ্যতার অধিকারী। ১৫১৮ খ্রীস্টাব্দে স্পেন মেক্সিকোর উদ্দেশ্যে রওনা হয়। মেক্সিকোর অভ্যন্তরীণ বিশৃঙ্খলা ও সাধারণ মানুষের অজ্ঞতার সুযোগে স্পেন মেক্সিকো দখল করে।

এরপর লক্ষ লক্ষ স্পেনীয় মেক্সিকোতে পাড়ি জমায় এবং তারা বহু স্থানীয় অধিবাসীকে বিতাড়িত করে। প্রকৃত পক্ষে স্পেনের জন্য মেক্সিকো ছিল আমেরিকা মহাদেশে পাড়ি দেয়ার প্রেবেশ দ্বার। প্রায় ৩০০ বছর ধরে উপনিবেশিক শাসনের পর স্পেনের অবস্থান দুর্বল হতে থাকে এবং মেক্সিকোর জনগণ স্বাধীনতা আন্দোলন শুরু করে। শেষ পর্যন্ত ১৮২১ খ্রীস্টাব্দের এই দিনে মেক্সিকো স্বাধীনতা লাভ করে।

১৯২৯ সালের এই দিনে বায়তুল মোকাদ্দাসে নুদবা প্রাচীর আন্দোলন শুরু হয়। আল আকসা মসজিদের পশ্চিম প্রান্তে অবস্থিত নুদবা স্থান থেকে বিশ্বনবী হযরত মোহাম্মদ(সা:) উর্ধ্বলোকে গমন করেছিলেন। এজন্য ঐতিহাসিক ও ধর্মীয় দিক থেকে মুসলমানদের কাছে এ স্থানটির বিশেষ গুরুত্ব রয়েছে। ইহুদীবাদী ইসরাইল বৃটিশদের সহায়তায় যখন ফিলিস্তিন ভূখন্ড দখল এবং এ অঞ্চলের মুসলমানদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছিল তখন এর প্রতিবাদে ফিলিস্তিনীরা নুদবা আন্দোলন শুরু করে।

এ আন্দোলন অন্যান্য ফিলিস্তিনী শহরগুলোতেও ছড়িয়ে পড়ে এবং জনগণ প্রতিবাদ মুখর হয়ে ওঠায় বৃটিশও আতঙ্কিত হয়ে পড়ে। শেষ পর্যন্ত ফিলিস্তিনে সামরিক শাসন জারি করা হয়। সশস্ত্র ইহুদীবাদী ও পুলিশ বাহিনী এবং বৃটিশ সেনা বাহিনী অত্যন্ত নিষ্ঠুরভাবে আন্দোলনকারী ফিলিস্তিনীদের উপর হামলা চালিয়ে আপতত আন্দোলন দমন করতে সক্ষম।

১৯৯১ সালের এই দিনে পূর্ব ইউরোপের দেশ ইউক্রেন সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন থেকে আলাদা হয়ে স্বাধীনতা লাভ করে। রাশিয়া ১৭শ’ শতকের মাঝামাঝি সময় থেকে ইউক্রেনের উপর কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠার চেষ্টা শুরু করে যা কিনা পোল্যান্ডের দখলে ছিল।

এরপর ১৮শ’ শতকের শেষের দিকে রাশিয়া ইউক্রেনের একটা বিশাল অংশের উপর নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করে। সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নে কমিউনিষ্ট বিপ্লবের পর ইউক্রেন স্বাধীনতা লাভ করলেও ১৯২২ সালে এ দেশটি সোভিয়েত ইউনিয়নের অন্তর্ভুক্ত হয়।

১৯৮০র দশকে ইউক্রেনে স্বাধীনতাকামীদের তৎপরতা তেমন জোরালো না হলেও কয়েকটি প্রদেশ সোভিয়েত ইউনিয়ন থেকে বেরিয়ে যাওয়ায় ইউক্রেনেও স্বাধীনতার দাবী জোরদার হতে থাকে। শেষ পর্যন্ত ১৯৯১ সালে ইউক্রেন স্বাধীন দেশ হিসাবে আত্ম প্রকাশ করে। ইউক্রেনের মোট আয়তন ছয় লক্ষ বর্গ কিলোমিটার এবং রাশিয়া, বেলোরাশিয়া, পোল্যান্ড, হাঙ্গেরী, রুমানিয়া ও মালদাভির সাথে এর সীমান্ত রয়েছে।

হযরত ওমর (রা:) খেলাফতের দায়িত্বভার গ্রহণ (৬৩৪)
ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির প্রথম জাহাজ হেক্টর এর সুর আগমন (১৬০০)
দাসপ্রথা বিরোধী প্রচারক উইলিয়াম উইলবার ফোর্সের জন্ম (১৭৫৯)
ব্রিটিশ সেনাবাহিনীর ওয়াশিংটন ডিসি দখল এবং হোয়াইট হাউসে অগ্নিসংযোগ (১৮১৪)
মিশরের জাতীয় নেতা সাদ জগলুল পাশার মৃত্যু (১৯২৭)
ভারতে অন্তবর্তীকালীন সরকারের শপথ (১৯৪৬)
উত্তর আটলান্টিক চুক্তি সংস্থা (ঘঅঞঙ) গঠিত (১৯৪৯)
ফখরুদ্দিন আলী আহমদ ভারতের পঞ্চম রাষ্ট্রপতি নিযুক্ত (১৯৭৪)
৪৫ বছরের কমিউনিস্ট শাসনের পর তাদেউজের নেতৃত্বে পোল্যান্ডে নতুন সরকার গঠন (১৯৮৯)
সোভিয়েত ইউনিয়নভুক্ত ইউক্রেন প্রজাতন্ত্রের পূর্ণ স্বাধীনতা ঘোষণা (১৯৯১)