ইতিহাসে প্রতিদিন আজ (বুধবার) ১০ এপ্রিল’২০১৯

ইতিহাসে প্রতিদিন আজ (বুধবার) ১০ এপ্রিল’২০১৯
ইতিহাসে প্রতিদিন আজ (বুধবার) ১০ এপ্রিল’২০১৯

(নবাব আলীবর্দী খাঁর মৃত্যু)
স্বাধীন বাংলার শেষ নবাব সিরাজুদ্দৌলার নানা আলীবদী খাঁর মৃত্যুদিন আজ। ১৭৫৬ সালের এই দিনে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তার জন্ম ১৬৭৬ সালে। প্রকৃত নাম মীর্জা মহম্মদ আলী। চাকরির উদ্দেশ্যে দিল্লী থেকে বাংলার নবাব মুর্শিদকুলি খার কাছে এসে প্রত্যাখ্যাত হন। প্রত্যাখ্যাত হয়ে যান উড়িষ্যার নায়েব সুবা সুজাউদিনের কাছে। সেখানে কিছুদিন ঘুরাঘুরির পর একটি জেলার ফৌজদার নিযুক্ত হন। ১৭২৭ সালে মুর্শিদকুলি খাঁর মৃত্যুর পর বাংলার মসনদে আসীন হন সুজাউদ্দিন। তিনি মীর্জা মহম্মদ আলীকে ‘আলীবর্দী উপাধি দিয়ে রাজমহলের ফৌজদার নিযুক্ত করেন। ১৭৩৩-এ হন বিহারের নায়েব সুবা । ১৭৩৯-এ সুজাউদিনের মৃত্যুর পর সরফরাজ খাঁ মসনদে বসলে আলীবদী খাঁ বিদ্রোহ করেন। পরের বছর ১৭৪০-এ গিরিয়ার সরফরাজকে পরাজিত করে সূজা উল মূলক হেসামুদ্দৌলা মহাবৎ জঙ্গ বাহাদুর নাম গ্রহণ করে বাংলার মসনদে আরোহন করেন। ১৭৫৬ পর্যন্ত বাংলার শাসনকার্য পরিচালনা করেছেন তিনি। রাজনীতি, কূটনীতি, রণনীতি সর্বক্ষেত্রেই পারদশী ছিলেন তিনি। ইউরোপীয় বণিকদের অপছন্দ করলেও বাংলার অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির কথা ভেবে ইংরেজদের দেশ থেকে বিতাড়ন করেননি। তবে ইংরেজদের কঠোর শাসনের মধ্যে রাখেন। দৌহিত্র নবাব সিরাজুদ্দৌলাকেও ইংরেজদের প্রশ্রয় না দেয়ার শিক্ষা দিয়ে গেছেন।

১৮১৩ খৃষ্টাব্দের এ দিনে ফরাসী গণিতবিদ জোসেফ লুইস লরেঞ্জ মৃত্যুবরণ করেন। তিনি ১৭৩৬ খৃষ্টাব্দের ২৫ শে জানুয়ারি ইতালীর তুরিনে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ইতালীতে জন্মগ্রহণ করলেও জীবনের বেশীরভাগ সময় ফ্রান্সের প্রুজিয়াতে কাটান। ফলে তাকে একইসাথে ইতালীয় এবং ফরাসী গণিতবিদ হিসেবে অভিহিত করা যায়। লুইস লরেঞ্জ গণিতশাস্ত্রের উপর ব্যাপক গবেষণা করেন এবং বিশ্লেষণধর্মী থিওরি আবিষ্কার করেন। গণিতশাস্ত্রের উপর তার রচিত বিখ্যাত গ্রন্থের নাম ”বিশ্লেষণের কৌশল”। তিনি এই গ্রন্থটি ২৫ বছর ধরে রচনা করেন ।১৯১৯ সালের ইতিহাসের এ দিনে মেক্সিকোর খ্যাতনাম বিপ্লবী ইমিলিয়ানো জাপাটা এক ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে নিহত হন। তিনি ১৮৭৯ সালের ৮ ই আগস্ট জন্মগ্রহণ করেন। ১৯১০ সালের শেষের দিকে যখন মেক্সিকোর ভূমিসংস্কার বিপ্লব প্রকট আকার ধারণ করে তখন জাপাটাকে রেড ইন্ডিয়ানরা তাদের মুক্তিদাতা বলে মনে করতে থাকে। আর এ সময় জাপাটার নেতৃত্বে লিবারেশন আর্মি নামে একটি বিপ্লবী বাহিনী গঠিত হয় এবং স্বাধীনতার দাবীতে তারা অস্ত্র হাতে তুলে নেন। ইমিলিয়ানো স্বাধীনতা কামীদের নেতৃত্ব দেন। এদিকে মেক্সিকোর প্রেসিডেন্ট ফারানসিসকো মাদরোকে জাপাটা যতদিন সংস্কারবাদী বলে মনে করতেন ততদিন তিনি তার সাহায্য পেয়েছিলেন। কিন্তু জাপাটার ভূমিসংস্কার নীতির ক্ষেত্রে তিনি প্রেসিডেন্টের বিরোধীতা ও ষড়যন্ত্রের মুখোমুখি হন। এর পর তার নেতৃত্বে প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে ওঠে এবং তারা জনগণের স্বার্থে বিপুল ভূমি মুক্ত করতে সামর্থ হন।

১৯৪৬ সালের এ দিনে ফরাসী সেনাদের সর্বশেষ দলটি লেবানন ত্যাগ করে। প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর যখন ১৯১৮ সালে ওসমানীয় স¤্রাজ্য ভেঙ্গে খন্ড খন্ড হয়ে যায় তখন ফ্রান্স লেবানন এবং সিরিয়া জবর দখল করে। তারপর দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় জার্মান ফ্রান্স দখল করে নেয় ফলে লেবাননে যে ফরাসী শাসন চলছিল তখন তা জার্মানের নির্দেশে পরিচালিত হতে থাকে। কিন্তু ১৯৪১ সালে ফরাসী এবং ব্রিটিশ সৈন্যরা আবার লেবানন দখল করে নেয়। লেবাননের জনগণ তখন স্বাধীনতার জন্যে আন্দোলন করে এবং ফরাসী ও ইংরেজদের উপর চাপ সৃষ্টি করে। এরপর লেবানন ফরাসীদের হাত থেকে মুক্ত হয় এবং ১৯৪৩ সালে সেখানে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এরপর লেবাননে নতুন সংবিধান প্রণীত হয় যা ছিল ফরাসী আধিপত্যবাদ বিরোধী। ফরাসীর নেতৃবৃন্দ এতে ক্ষুব্ধ হয়ে লেবাননের প্রেসিডেন্টসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দকে আটক করে। প্রেসিডেন্টসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দকে আটকের বিরুদ্ধে লেবাননের জনগণ ফ্রান্সের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করে ফলে তারা প্রেসিডেন্টসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দকে মুক্ত করে দেয় এবং শাসনভার তাদের হাতে ন্যাস্ত করে। এর পর ১৯৪৫ সালে লেবানন স্বাধীনতা লাভ করে। একই বছর ব্রিটিশ এবং ফরাসী সেনাদের লেবানন ত্যাগ করার বিষয়ে তাদের সাথে একটি সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় এবং এপ্রিলের মধ্যে তা বাস্তবায়িত হয়।

১৯৭৩ সালের এ দিনে লেবাননের রাজধানী বৈরুতে ইহুদীবাদী ইসরাইলের গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের হাতে তিনজন সংগ্রামী ফিলিস্তিনী শাহাদাত বরণ করেন। নিহত ফিলিস্তিনীরা হচ্ছে- কামাল নাসের, কামাল আদুয়ান এবং মোহাম্মাদ ইউসুফ। মোসাদের একদল কমান্ডো ভূ-মধ্যসাগরের মধ্যে দিয়ে বৈরুতে প্রবেশ করে এবং ঐ ফিলিস্তিনী নেতাদের হত্যা করে। এই ঘটনার দশ বছর পর ১৯৮৩ সালের ১০ ই এপ্রিল পর্তুগালে ফিলিস্তিন মুক্তি সংগঠন বা পিএলও নেতা ইয়াসির আরাফাতের রাজনৈতিক উপদেষ্টা এসাম তারতাবিকে মোসাদ হত্যা করে। দখলদার ইসরাইল যেভাবে ফিলিস্তিনী নেতৃবৃন্দসহ সেখানকার বেসামরিক জনগণকে হত্যা করছে তা থেকে বোঝা যায় তারা এভাবে যে কোনো দেশের মধ্যে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড ও হত্যাযজ্ঞ চালিয়ে সেই দেশের সার্বভৌমত্ব বিনষ্ট করতে বিন্দুমাত্র কার্পণ্য করে না।

মারাঠা অধিনায়ক শিবাজির জন্ম (১৬২৭)
হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা বিজ্ঞানের জনক ফ্রিডরিখ হ্যানিম্যানের জন্ম (১৭৫৫)
নবাব সিরাজুদ্দৌলার মুর্শিদাবাদের সিংহাসনে আরোহন (১৭৫৬)
বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে সাভে কাজের সূচনা (১৮০২)
কলকাতায় আর্য সমাজ প্রতিষ্ঠা (১৮৭৫)
সান ইয়াৎসেন চীনের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত (১৯২১)
মার্কিন সিনেটে নাগরিক অধিকার বিল গৃহীত (১৯৬০)
১২৯ জন নাবিকসহ আমেরিকার আণবিক শক্তিচালিত সাবমেরিন প্রেসার ডুবে যায় (১৯৬৩)
মুজিবনগরে সৈয়দ নজরুল ইসলামের নেতৃত্বে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সনদ ঘোষণা (১৯৭১)
বাংলাদেশ গণপরিষদের প্রথম অধিবেশন: শাহ আবদুল হামিদ স্পিকার, মোহাম্মদউল্লা ডেপুটি স্পিকার (১৯৭২)
ইরানে ভূমিকম্পে ৩ সহ¯্রাধিক লোক নিহত (১৯৭২)

আপনার মতামত লিখুনঃ