আরো অনেক কিছুই করতেন নিউ মার্কেটের সেই ট্যাটু বাদশাহ

নারীর শরীরে ট্যাটু আঁকার অশ্লীল ভিডিও তৈরি এবং তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ ইন্টারনেটে প্রকাশ করার অভিযোগে গ্রেপ্তার হয়েছেন মো. তরিকুল ইসলাম বাদশাহ। একই ভিডিও-তে যে নারীকে দেখা গেছে তাকেও খুঁজছে পুলিশ। এক নারীর শরীরে ট্যাটু আঁকার একটি আপত্তিকর ভিডিও প্রকাশ করলে তা ভাইরাল হয়। পরে গত মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর নিউমার্কেট এলাকা থেকে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) সাইবার নিরাপত্তা ও অপরাধ দমন বিভাগ তাকে আটক করেছেন।

ধূমপানের কারণে যাদের ঠোঁটে কালো দাগ পড়েছে, লেজারের মাধ্যমে তাও দূর করেন সেই বাদশাহ। আরো বলছেন, অনেক মেয়ে মানুষ আছে যাদের লিপস্টিক দিতে দিতে তার এসিডে ঠোঁট কালো হয়ে যায়। সেই কালো দাগও দূর করেন তিনি। ঠোঁটের যেকোনো সমস্যা তিনি গ্যারান্টি সহকারে ঠিক করেন বলে জানাচ্ছিলেন ভিডিওতে। এ কাজে ব্যবহৃত যন্ত্রপাতিও দেখান তিনি। তার ট্যাটু স্টুডিও’র বিভিন্ন মেশিন দেখান। তার মতে, এগুলো সবই বাইরের দেশের।

বাদশাহর আরেকটি ভিডিওতে দেখা গেছে, তিনি কেবল ট্যাটুই নয় আরো অনেক কিছুই করতেন। ফুটেজে তিনি বলছেন, আমি মুকের মেছতা দূর করি। মুখের অবাঞ্ছিত হেয়ার রিমুভ করি। হাতের কাটা দাগ, ভ্রূ পিয়ার্সিং, নাভী পিয়ার্সিং করি।

এই ভিডিও ধারণের সময় সেখানে একজন নারীকেও উপস্থিত থাকতে দেখা যায়। তার হেয়ার রিমুভের ভিডিওটি দেখানোর জন্যেই এই আয়োজন। মেয়েটিকে তিনি ‘সুন্দরী রুবি’ নামে পরিচয় করিয়ে দেন দর্শকদের। বলেন, ও আমার ফ্রেন্ড। এ সময় মেয়েটিকে নিয়ে তিনি রসিকতাও করছিলেন। মেয়েটির হেয়ার রিমুভিংয়ের কাজটি তিনি সেখানে দেখাচ্ছিলেন।

আপনার মতামত লিখুনঃ