অনির্দিষ্টকালের জন্য কলম্বোর সব গির্জা বন্ধ ঘোষণা

অনির্দিষ্টকালের জন্য কলম্বোর সব গির্জা বন্ধ ঘোষণা
অনির্দিষ্টকালের জন্য কলম্বোর সব গির্জা বন্ধ ঘোষণা

ভয়াবহ সিরিজ বোমা হামলার পর আবারও হামলার আশঙ্কায় শ্রীলঙ্কার রাজধানী কলম্বোতে সব ক্যাথলিক গির্জা বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত গির্জাগুলো বন্ধ থাকবে বলে জানিয়েছেন কলম্বোর আর্চবিশপ কার্ডিনাল ম্যালকম রঞ্জিত। দেশটির ক্যাথলিক চার্জে ও তাদের অধীনস্ত উপাসনালয়ে আবারও হামলা হতে পারে-দেশটির নিরাপত্তা বাহিনীর এমন একটি সতর্কবার্তা ফাঁস হওয়ার পর এই ঘোষণা দেন আর্চবিশপ।

বার্তা সংস্থা এপির প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে। শুক্রবার ম্যালকম রঞ্জিত একটি নিরাপত্তা নথির বরাত দিয়ে সাংবাদিকদের বলেন, ক্যাথলিক গির্জা এবং অধীনস্ত উপাসনালয় আইএসের সাথে সংশ্লিষ্ট জঙ্গিগোষ্ঠীর হামলাকারীদের লক্ষ্যবস্তুতে রয়েছে। এজন্য পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত গির্জাগুলো বন্ধ থাকবে। আমরা সেদিনের ভয়াবহ ঘটনার পুনরাবৃত্তি চাই না। এসময় তিনি নিজেদের নিরাপত্তার জন্য উপসনাকরীদের বাড়িতে থাকার অনুরোধ করেন।

যদিও স্থানীয় যে গোষ্ঠীর কথা বলা হচ্ছে তার প্রধান ওই হামলায় নিহত হয়েছেন বলে সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। তবে এই হামলায় জড়িতদের অনেকে এখনও ধরাছোঁয়ার বাইরে আছে বলে জানিয়েছে সরকার। এমন একটি সময় আর্চবিশপ এই ঘোষণা দিলেন যার আগে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস থেকে আরও হামলার আশঙ্কার কথা জানিয়ে দেশটির নাগরিকদের উপাসনলায় এড়িয়ে চলার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

রোববারের হামলার পর কলম্বোজুড়ে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। দেশটির পক্ষ থেকেও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে সম্ভাব্য নতুন হামলার বিষয়ে বার বার সতর্ক করা হচ্ছে। এজন্য বিস্ফোরকদ্রব্য বহন করতে পারে এমন সন্দেহভাজনদের অনুসরণ করা হচ্ছে। এর আগে শুক্রবার মুসলিম সম্প্রদায়ের জুমার নামাজ বাড়িতে আদায় করতে বলা হয়। এরপরও শহরের কয়েকটি মসজিদে নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। এমন একটি মসজিদে বাইরে থেকে পুলিশ পাহারা দিতে দেখা গেছে। এদিকে শুক্রবার রাতে আত্মঘাতী বোমা হামলায় জড়িতদের সঙ্গে দেশটির নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিবিনিময় হয়েছে। গুলিবিনিময়ে ৬ শিশুসহ ১৫ জন সন্দেহভাজন ব্যক্তি নিহত হয়েছেন বলে দাবি করছে দেশটির সেনাবাহিনী।

যদিও দেশটির নিরাপত্তা কর্মকর্তারা বলছেন, গত রোববারের হামলার পর ইতোমধ্যেই দেশের নিরাপত্তা ব্যবস্থার উন্নতি হয়েছে। গত রোববার খ্রিস্টানদের বড় ধর্মীয় উৎসব ইস্টার সানডে উদযাপনের সময় শ্রীলঙ্কায় তিনটি গির্জা ও চারটি হোটেলে ভয়াবহ সিরিজ বোমা হামলা হয়। এরপরই বাড়তে থাকে নিহতের সংখ্যা। প্রথমদিকে নিহতের সংখ্যা ৩৫৯ জন বলা হলেও গণনার ভুল দেখিয়ে নিহতের সংখ্যা ১০৬ জন কমিয়ে ফেলে সরকার। এই হামলায় জড়িত সন্দেহে ১৪০ জনকে খুঁজতে নিরাপত্তা বাহিনী অভিযানে নেমেছে। শুক্রবার দেশটির প্রেসিডেন্ট মাইথ্রিপালা সিরিসেনা জানান, ২০১৩ সাল থেকে এখন পর্যন্ত ১৪০ জন ব্যক্তি জঙ্গিগোষ্ঠী আইএসের সঙ্গে জড়িত হয়েছে। তারাই স্টার সানডেতে হামলায় জড়িত বলে মনে করছে দেশটির সরকার।