অধিকারের লড়াইয়ে জীবন দিতেও প্রস্তুত

অধিকারের লড়াইয়ে জীবন দিতেও প্রস্তুত

ঢাকা সিটি নির্বাচন-২০২০: জনগণের অধিকার ফেরানোর জন্য যদি জীবন দিতে হয়, তবে জীবন দিতেও প্রস্তুত আছেন বলে জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেন।

শুক্রবার দনিয়ায় বর্ণমালা স্কুলের গলিতে জনসংযোগ করতে গিয়ে এ কথা বলেন তিনি।

ভোটারদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘আমি আপনাদের বলতে চাই, কোনো বাধা মানবেন না। কোনো ভয় পাবেন না।

আমার বাবা আমাকে সবসময় বলেছেন, কোনো মানুষের কাছে মাথা নত করবা না। আমাদেরকে মহান আল্লাহতালা বানিয়েছেন, উনাকে শুধু ভয় পাবা।

আর দুনিয়াতে কোনো মানুষকে ভয় পাওয়ার দরকার নাই। আমরা কারো জমিদারি মানব না। জনগণকে সঙ্গে নিয়ে জনগণের অধিকার ফিরিয়ে দেব।

আপনাদের অধিকারের লড়াইয়ে যদি জীবন দিতে হয়, আমি জীবন দিতেও প্রস্তুত।’

প্রাণপ্রিয় ঢাকা নগরীকে এ সরকারের আমলে তিলে তিলে ধ্বংস করে ফেলা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, “তারা দেখাচ্ছে অনেক উন্নয়ন হয়েছে।

খালি উন্নয়নের জোয়ার আর জোয়ার। কিন্তু বৃষ্টি আসলে আমরা দেখছি, এই এলাকা পানির জোয়ারে রাস্তাঘাট ভেসে যায়।

‘আপনারা একটু চিন্তা করে দেখেন, গত ১৩ বছরে এমন কোনো অপকর্ম নেই যা এই সরকার করে নাই।

শেয়ার মার্কেট লুট, বাংলাদেশ ব্যাংক লুটসহ, ধর্ষণ, হত্যা, খুন, ভোটের অধিকার হরণ, জনগণের কথা বলার অধিকার হরণ করেছে।

১৯৭১ সালে যুদ্ধ করে দেশকে স্বাধীন করা হয়েছিল এই বাংলাদেশের জন্য নয়।”

সরকারের সমালোচনা করে তিনি আরো বলেন, ‘এরা এমন উন্নয়ন করে, পদ্মা সেতুর একটা করে পিলার বসে আর সেটা হেডলাইন হয়।

এরকম আজব উন্নয়ন আমরা দেখি নাই। একটা করে স্প্যন বসায় আর সেটা উদ্বোধন করা হয়। এই সেতু দিয়ে কবে যান চলাচল করবে তা নিয়ে সংশয় রয়েছে।’

৩০ জানুয়ারি ভোটকেন্দ্রে ভোট দিতে যাওয়ার আহ্বান জানিয়ে ইশরাক বলেন, আমরা বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল, আমরা জনগণের রাজনীতি করি।

আমরা কোনো পরিবারকেন্দ্রিক রাজনীতি করি না। জনগণের অধিকার জনগণকে ফিরিয়ে দেব, ভোটের অধিকার আপনাদের ফিরিয়ে দেব। গণতন্ত্রকে মুক্ত করব। বাংলাদেশ আবারো স্বাধীন করব।

আগামী ৩০ তারিখে আপনারা ভোট কেন্দ্রে যাবেন। আপনারা কোনো বাধা বিপত্তি মানবেন না। আপনাদেরকে সাথে নিয়ে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি’র আন্দোলন সূচনা করেছে।

আগামী ৩০ তারিখে আপনারা ভোট দিয়ে ধানের শীষকে জয়যুক্ত করবেন।

বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করার চূড়ান্ত লক্ষ্যে পৌঁছানোর যে আমরা সংগ্রামে রয়েছি, সেটি আমরা সম্পন্ন করব এবং আপনাদের অধিকার আপনাদের ফিরিয়ে দেব।